মিউনিখ: ফ্রাঙ্ক রিবেরি, আর্জেন রবেন এবং রাফিনহা। শনিবার ফ্রাঙ্কফুর্টের বিরুদ্ধে বুন্দেশলিগার শেষ ম্যাচে বায়ার্নের হয়ে বিদায়ী ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন তিন কিংবদন্তি। গত ছ’বারের চ্যাম্পিয়ন বায়ার্নের বিরুদ্ধে চলতি মরশুনে লিগ জয়ের লড়াইয়ে প্রবলভাবে ছিল বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। কিন্তু টানা সপ্তমবার বুন্দেশলিগা ট্রফি জিতে তিন কিংবদন্তিকে তাদের বিদায়ী উপহার দিলেন সতীর্থরা। ঘরের মাঠে নির্ণায়ক ম্যাচে ফ্রাঙ্কফুর্টকে ৫-১ গোলে হারাল বায়ার্ন।

দু’পয়েন্ট এগিয়ে থেকে ঘরের মাঠ আলিয়াঞ্জ এরিনায় ফ্র্যাঙ্কফুর্টের মুখোমুখি হয় বাভারিয়ানরা। শেষ ম্যাচে এসে কোনওরকম ভুল করার পক্ষপাতী ছিলেন না নিকো কোভাচের ছেলেরা। ঘরের মাঠে আধিপত্য রেখে প্রথমার্ধে এদিন চ্যাম্পিয়নের মতই শুরু করে বায়ার্ন। প্রথমার্ধ জুড়ে একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করলেও মাত্র ৪ মিনিটে জার্মান জায়ান্টরা এগিয়ে যায় কিংসলে কোমানের গোলে। প্রথমার্ধে ১ গোলে এগিয়ে থেকেই লকাররুমে যায় বায়ার্ন।

আরও পড়ুন: ১১৬ বছরের রেকর্ড ছুঁয়ে প্রথম ক্লাব হিসেবে ত্রিমুকুট জয় ম্যান সিটির

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ম্যাচে সমতা ফিরিয়ে আনে ফ্রাঙ্কফুর্ট। তবে তাদের প্রথম চারে শেষ করার স্বপ্ন কয়েক মিনিটের মধ্যেই বাস্তবে নামিয়ে আনেন বায়ার্ন ফুটবলাররা। ৫৩ ও ৫৮ মিনিটে গোল করে বায়ার্নের লিগ জয় নিশ্চিত করে ফেলেন দাভিদ আলাবা ও রেনাতো সাঞ্চেজ। কিন্তু ম্যাচের নির্যাস ফুরিয়ে যায়নি তখনও। কারণ পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নেমে বায়ার্নের হয়ে বিদায়ী স্মরণীয় করে রাখেন ফরাসি তারকা ফ্রাঙ্ক রিবেরি ও ডাচ তারকা আর্জেন রবেন।

আরও পড়ুন: ২০২৩ বিশ্বকাপ খেলতে পারেন এবিডি

৭২ মিনিট ও ৭৮ মিনিটে ফ্রাঙ্কফুর্টের কফিনে শেষ পেরেকদুটি পুঁতে দেন যথাক্রমে রিবেরি ও রবেন। একইসঙ্গে বায়ার্নে তাঁর ১২ বছরের দীর্ঘ কেরিয়ারে ৯ বারের জন্য বুন্দেশলিগা খেতাব জিতে অনন্য নজির গড়েন ফরাসি উইঙ্গার। প্রথম ফুটবলার হিসেবে ন’বার বুন্দেশলিগা জয়ী দলের সদস্য হয়ে রইলেন তিনি। ২২ গোল করে চতুর্থবারের জন্য বুন্দেশলিগার সর্বোচ্চ গোলদাতা হলেন রবার্ট লেওয়ানদোস্কি।

শেষ ম্যাচে বরুসিয়া মনচেনগ্লাডবাচকে হারালেও দু’পয়েন্টের ব্যবধানে দ্বিতীয়স্থানে রইল বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। তবে বহুদিন পর শেষ ম্যাচ অবধি জিইয়ে রইল লিগের উত্তেজনা। তৃতীয়স্থানে আরবি লেইপজিগ এবং চতুর্থস্থানে শেষ করে আগামী মরশুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের যোগ্যতা অর্জন করল বরুসিয়া মনচেনগ্লাডবাচ।