স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: পৃথক ঘটনায় আগুনে পুড়ে মৃত্যু চার মহিলার। মৃতদের নাম অপর্ণা হাজরা (২২), শিউলি বাউরি (২০), রুনা খাতুন (৪৫) ও রিঙ্কু থান্ডার (১৮)। এরা সকলেই আগুনে পুড়ে মারা যায়।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, বীরভূমের দুবরাজপুর থানার করকরে গ্রামের বাসিন্দা অপর্ণা হাজরা ২৩ জানুয়ারি অর্থাৎ সরস্বতী পুজোর পরের দিন শীতল ষষ্ঠীর ব্রত উদযাপন করে। ষষ্ঠীর নিয়ম মতো ঠাণ্ডা খাবার খেয়ে ব্রত ভঙ্গ করে সে। শীতের মধ্যে ঠাণ্ডা খাবার খেয়ে কাঁপতে থাকেন তিনি। শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে খড় জ্বালিয়ে আগুন পোহানোর সময় আচমকাই তিনি অগ্নিদগ্ধ হয়ে যান। আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখান থেকে পরে তাকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানাতরিত করা হয়। অবশেষে বৃহস্পতিবার সকালে মৃত্যু হয় তার।

অন্যদিকে একইভাবে মকরসংক্রান্তির দিন সকালে ঠাণ্ডা জলে স্নান করে শীতের হাত থেকে বাঁচতে খড় জ্বালিয়ে আগুন পোহাতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হন বীরভূমের রাজনগর থানার জয়পুরের বাসিন্দা শিউলি বাউড়ি। সিউলিকেও একই রকমভাবে প্রথমে সিউড়ি হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে বদলি করে বর্ধমান হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বুধবার রাতে তাঁর মৃত্যু হয়।

অপরদিকে, কাঠের উনুনে রান্না করতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যু হয় রায়নার বেলসর গ্রামের বাসিন্দা রুনা খাতুন ও মঙ্গলকোটের শিমূলিয়া গ্রামের বাসিন্দা রিঙ্কু থান্ডারের। রূনা খাতুন ২৫ জানুয়ারী থেকে এবং রিংকু থান্ডার ২২ জানুয়ারী থেকে অগ্নিদগ্ধ হয়ে ভর্তি ছিলেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। রিংকু থান্ডারের মৃত্যু হয় বুধবার। আর রুনা খাতুনের বৃহস্পতিবার সকালে মৃত্যু হয় রূনা।