মালদহ: সুজাপুর কাণ্ডে চারজন পুলিশকে চিহ্নিত করল পুলিশরা। সোমবার তৃণমূল নেত্রী মৌসম বেনজির নুর সেখানকার পুলিশদের সঙ্গে বৈঠক করেন। কিছুদিন আগে বাম কংগ্রেসের ডাকা বনধে সুজাপুরে উত্তেজনা ছড়ায়। ভাইরাল হয় একটি ভিডিও। যাতে দেখা যায় পুলিশদের ওই দিন ভাঙচুর করতে। ফলে ওই ছবি নিয়ে প্রশাসনের সোচ্চার হয় বাম কংগ্রেসরা। চাপে পড়ে ঘটনার তদন্ত করা হলে চার জনকে পুলিশকে চিহ্নিত করা হয়। ওই চার জনের কী শাস্তি হবে সে ব্যাপারে এখনও কিছু জানা যায়নি।

কিছুদিন আগে পুলিশের ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওর তদন্ত ভার নেয় সিআইডি। স্পেশাল সুপারিনটেনডেন্ট ডেভিড লেপচার নেতৃত্বে একটি তদন্তকারী দল মালদহে পৌঁছয়। তদন্ত করে দেখা যায়। বনধ সমর্থকরা নয়, পুলিশই ভাঙচুরের সঙ্গে যুক্ত। ঘটনায় তাজ্জব নানা মহল। ভিডিও ফুটেজটি সামনে এলে তা খতিয়ে দেখে আরও অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হবে বলে জানিয়েছিলেন জেলা পুলিশ সুপারের।

ওই ভিডিওর প্রেক্ষিতে বাম ও কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধি দল জেলা পুলিশ সুপারের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। জেলা কংগ্রেস সভাপতি মুস্তাক আলম তখ জানান, বাম ও কংগ্রেস কর্মীদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করছে পুলিশ। এই বিষয়ে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়েছিলেন তিনি। একই অভিযোগ আনেন জেলা সিপিএম সম্পাদক অম্বর মিত্রও।

এবার সুজাপুর কাণ্ডে চারজন পুলিশকে চিহ্নিত করা হল। দ্রুতই জানা যাবে তাদের কী শাস্তি হল। বাম সমর্থকদের ওপরে সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুরের অভিযোগ থাকলেও পরে দেখা যায় ভাঙচুর করেছে পুলিশ। এদিন তৃণমূল নেত্রী মৌসম বেনজির নুর সাংবাদিকদের বলেন, যাদের হাতে নিয়ন্ত্রণের ভার ছিল তারা যদি সঠিক ব্যবস্থা নিত তাহলে এত উত্তেজনা ছড়াত না।