বর্ধমান(পূর্ব বর্ধমান): বাস ধরার জন্য অপেক্ষা করাই কাল হল। প্রবল গতিতে বেপরোয়া ট্রাক এসে পিষে দিল পথচারীদের। মর্মান্তিক এই দূর্ঘটনায় ১১ জন চাকার তলায় পিষ্ট হয়েছেন বলে খবর। ঘটনা পূর্ব বর্ধমান জেলার ২ নম্বর জাতীয় সড়কের পালসিট স্টেশনের কাছে ঘটেছে।

জানা গিয়েছে একটি লরি রাস্তার ধার ঘেঁষে পিছু গতিতে পথচারীদের পিষে দিয়ে চলে যায়। জখম প্রত্যেকের অবস্থা গুরুতর। পালসিট স্টেশনের কাছে এই দূর্ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার বর্ধমানের মেমারী থানার পালসিটে বাস ধরার জন্য শ্রমিকরা দাঁড়িয়ে ছিলেন। সেই সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি বালির লরি ধাক্কা মারে। ঘটনায় কমবেশী প্রায় ১১ জন গুরুতর জখম হন। আহতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে। বেসরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে , ঘটনাস্থলেই ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত বাকিদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর । ফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে ছে, বুধবার বিকালে পালসিট ষ্টেশন সংলগ্ন বাসস্ট্যাণ্ড এলাকায় বাস ধরার জন্য অপেক্ষা করছিলেন বেশ কিছু শ্রমিক। চলতি ধান রোয়া সহ অন্যান্য কাজ করতেই এদিন তাঁরা পালসিট এলাকায় আসেন। আরও জানা গিয়েছে, বাসস্ট‌্যাণ্ড এলাকায় দাঁড়িয়ে থাকার সময় আচমকাই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দ্রুতগামী একটি লরি ধাক্কা মারলে ঘটনাস্থলেই কয়েকজনের মৃত্যু হয়। গুরুতর আহতদের মেমারী হাসপাতাল এবং বর্ধমানের অনাময় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। পুলিশ সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখে ঘাতক লরিটিকে ধরার চেষ্টা করছে বলে জানা গিয়েছে।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই বর্ধমানের আলিশা এলাকায় ২নং জাতীয় সড়কে কাকভোরে হেঁটে কাজে যাবার সময় লরির ধাক্কায় প্রাণ হারান ৪ জন। ওই ঘটনার পর সেভ ড্রাইভ সেফ লাইফের শ্লোগান নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। বুধবার বিকালে পালসিট এলাকায় ফের পথ দুর্ঘটনার ঘটনায় রীতিমত চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। থমথমে পরিস্থিতি গোটা এলাকায়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.