মস্কো: ন্যক্কারজনক এক ঘটনার সাক্ষী থাকল রাশিয়ার মস্কো সেলিব্রিটি কাপ। সোমবার দেশের অ্যামেচার লিগ চলাকালীন রেফারিকে আক্রমণ করে খবরের শিরোনামে রাশিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক এবং জেনিথ সেন্ট পিটার্সবার্গের আইকনিক ফুটবলার রোমান শিরোকোভ। আক্রমণ এতোটাই গুরুতর ছিল যে ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা রেফারি নিকিতা দানচেঙ্কোকে হাসপাতালের এমার্জেন্সি বিভাগে কাটাতে হয়। ঘটনায় ক্রিমিনাল প্রোসিকিউশনের মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কা শিরোকোভের।

ঘটনাটি ঘটে সোমবার রাশিয়ার অ্যামেচার লিগ মস্কো সেলিব্রিটি কাপ টুর্নামেন্টে। কোয়ার্টার ফাইনালের খেলা চলাকালীন বিপক্ষ বক্সে তাঁকে ফাউল করায় পেনাল্টির দাবিতে রেফারির সঙ্গে তর্ক জুড়ে দেন শিরিকোভ। যদিও রেফারি তাতে কর্ণপাত করেননি। এরপর ক্রমাগত উত্যক্ত করতে থাকায় শিরিকোভকে লাল কার্ড দেখাতে কার্পণ্য করেননি রেফারি। আর এতেই মেজাজ হারিয়ে তাঁর উপর চড়াও হন শিরিকোভ। প্রথমে মুখে ঘুষি মেরে দানচেঙ্কোকে মাটিতে ফেলে দেন দেশের জার্সি গায়ে ৫৭ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা শিরিকোভ। মাটিতে পড়ে থাকা অবস্থায় রেফারির পেটে-বুকে চলতে থাকে দেদার লাথি।

এরপর বাকি ফুটবলাররা এগিয়ে এসে শিরিকোভকে সরিয়ে নিয়ে যান। তবে আক্রমণে গুরুতর আহত রেফারি মাঠে পড়ে থেকে কাতরাতে থাকেন। চিকিৎসার কাজে নিযুক্ত হন মেডিক্যাল স্টাফেরা প্রাথমিক শুশ্রূষা চালালেও বাম চোখে গুরুতর আঘাত নিয়ে দানচেঙ্কোকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনায় ম্যাচটি সেখানেই পরিত্যক্ত হয়ে যায়। পরে ঘটনার ভয়াবহতা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে রেফারি দানচেঙ্কো জানিয়েছেন, তাঁকে সাড়ে ১২ ঘন্টা হাসপাতালে কাটাতে হয়েছে। যার মধ্যে কিছু সময় জরুরি বিভাগেও থাকতে হয়। প্রচুর পরীক্ষার পাশাপাশি শরীরে সেলাই পড়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

টুর্নামেন্টটি রাশিয়ান ফুটবল ইউনিয়ন কিংবা মস্কো ফুটবল ফেডারেশনের সঙ্গে কোনওরকম সম্পর্কিত না হওয়ায় শিরোকোভ বড়সড় শাস্তি থেকে রেহাই পেতে পারেন। কিন্তু পরবর্তীতে তাঁর বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল প্রোসিকিউশনের সম্ভাবনা প্রবল। যদিও ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেছেন রাশিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক। সোশ্যাল মিডিয়ায় এক বার্তায় তিনি লিখেছেন, ‘নিকিতার সঙ্গে যে অসঙ্গত কাজটা আমি করেছি তার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখপ্রকাশ করছি। পেনাল্টি না দেওয়া কিংবা লাল কার্ড দেখানো কখনোই রেফারির গায়ে হাত তোলার কারণ হতে পারে না। আশা করি নিকিতা খুব শীঘ্রই ফের নিজের কাজে ফিরবেন।’

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও