বেঙ্গালুরু: বাথরুমে পড়ে আঘাত পেলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এইচ ডি দেবেগৌড়া৷ সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় বাড়ির নিকটবর্তী হাসপাতালে৷ তবে চিন্তার কোনও কারণ নেই৷ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ডান পায়ে সামান্য আঘাত পেয়েছেন দেবগৌড়া৷ তাঁকে কিছুদিন বিশ্রামে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে৷

বাবার অবস্থার কথা জানতে পেরে বাড়ি ছুটে যান ছেলে পেশায় চিকিৎসক রমেশ৷ বাবার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন৷ তারপরই বাড়ির কাছে একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ৮৫ বছরের দেবগৌড়াকে৷ জানা গিয়েছে, আরেক ছেলে তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামী বাবার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন৷

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে বাথরুমে গিয়ে পা পিছলে পড়ে যান ৮৫ বছরের জনতা দল(সেকুলার) এর সভাপতি৷ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা জানান, দেবগৌড়ার ডান হাঁটুতে চোট লেগেছে৷ তবে কোনও ফ্র্যাকচার হয়নি৷ হাঁটুতে আঘাত পাওয়ায় হাঁটাচলা করতে অসুবিধা হচ্ছে৷ চিকিৎসকরা প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে কিছুদিন বিশ্রামে থাকতে বলেছেন৷

দু’দিন আগেই রাজ্যের জোট সরকারের উপর অসন্তোষ প্রকাশ করে মুখ খোলেন দেবগৌড়া৷ কংগ্রেসের কাজকর্ম নিয়ে তিনি যে মোটেই খুশি নন তা বুঝিয়ে দেন৷ জানান, তিনি মর্মাহত৷ আর চুপ করে বসে থাকতে পারছেন না৷ কর্ণাটকে কংগ্রেসের সমর্থনে সরকার গড়েছেন কুমারস্বামী৷ সেই সরকারের স্থায়িত্ব এখন মাত্র আট মাস৷ তবে এই জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে তাঁকে যে অনেত জ্বালা যন্ত্রণা সহ্য করতে হচ্ছে সেকথা বারবার মনে করিয়ে দিয়েছেন কুমারস্বামী৷ জানান, কংগ্রেস যদি সিদ্দারামাইয়াকে তাদের নেতা বলে মেনে নেন তাহলে মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দিতেও তিনি পিছপা হবেন না৷ সব মিলিয়ে জোট সরকারে থাকার অভিজ্ঞতা মোটেই সুখকর নয় কুমারস্বামীর৷