কলকাতা: গত কয়েক বছরের দীর্ঘ রোগভোগের পর প্রয়াত হলেন মোহনবাগানের প্রাক্তন সচিব অঞ্জন মিত্র৷ বৃহস্পতিবার ভোররাতে শহরের এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি৷ ক্লাবের তরফে সোশ্যাল মিডিয়ায় জানানো হয়, রাত ৩টে ১০ মিনিটে ইহলোকের মায়া ত্যাগ করেন প্রাক্তন মোহন সচিব৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর৷

অঞ্জন মিত্রর মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে ময়দানের এক উজ্জ্বল অধ্যায় শেষ হল৷ মোহনবাগান ক্লাবে টুটু বসু ও অঞ্জন মিত্রের পার্টনারশিপ কলকাতার ফুটবল প্রশাসনে কার্যত মিথে পরিণত হয়েছিল৷ অঞ্জন মিত্র লড়াই শেষ করায় ইতি পড়ল সেই জুটিতে৷

আরও পড়ুন: অতিথি কোচ হিসেবে বাগানে কাজ শুরু ব্যারেটোর

দীর্ঘ ২৩ বছর প্রশাসক হিসাবে মোহনবাগান ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন অঞ্জন মিত্র৷ ১৯৯৫ সালে ক্লাব প্রশাসনে হাতে খড়ি হয় তাঁর৷ শুরুর দিকে বাগানের অর্থসচিবের দায়িত্ব পালন করলেও পরে সবিচ হিসাবে ক্লাবের আধুনিকীকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেন তিনি৷ শেষ দিকে টুটু বসুর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক কিছুটা তিক্ত হলেও শেষমেশ বন্ধুত্বের বাঁধন ছিঁড়তে দেননি অঞ্জন মিত্র৷

গত বছর মোহনবাগানের নির্বাচন ঘিরে টুটু ও অঞ্জন গোষ্ঠীর বিভাজন চোখে পড়লেও শেষমেশ হরিহরআত্মা টুটু বসুর বিরুদ্ধে লড়তে রাজি হননি প্রাক্তন সচিব৷ নির্বাচন থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন অঞ্জম মিত্র এবং ক্লাব প্রশাসনে তাঁর যাত্রা শেষ হয় সেখানেই৷ যদিও শেষ পর্যন্ত ক্লাবের প্রতি নিজের সমর্থন বজায় রেখেছিলেন তিনি৷

আরও পড়ুন: দু’টি ম্যাচের জন্য ঘোষিত হল ভারতীয় দল

স্বাভাবিকভাবেই অঞ্জম মিত্রর প্রয়াণে মোহনবাগান তথা বাংলার ফুটবলমহলে শোকের ছায়া৷ শুক্রবার অনুশীলনসহ ক্লাবের যাবতীয় ফুটবল কার্যকলাপ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোহনবাগান৷ শুক্রবার সকালেই হাসপাতাল থেকে অঞ্জম মিত্রর মরদেহ তাঁর বাসভবনে নিয়ে যাওয়া হবে৷ সেখান থেকে বেলা ১১টা নাগাদ মোহনবাগান তাঁবুর উদ্দেশ্যে রওনা দেবে অঞ্জন মিত্রর শবযাত্রা৷ ক্লাব তাঁবুতে দুপুর আড়াইটে পর্যন্ত রাখা থাকবে প্রাক্তন সচিবের পার্থিব দেহ৷ বিকাল সাড়ে তিনটে নাগাদ কেওড়াতলা মহাশ্মশানে অঞ্জন মিত্রের শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে৷