আইজল: আগেই বিক্ষোভ মিছিল থেকে বাই বাই ইন্ডিয়া স্লোগান উঠেছিল৷ সেই সঙ্গে চিনকে আমন্ত্রণ জানানোর পোস্টারও দেখা গিয়েছিল৷ এবার খোদ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর হাতে দেখা গেল ‘স্বাধীনতা’ চাই পোস্টার৷ সব মিলে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বিরোধিতায় আরও উত্তপ্ত মিজোরাম৷ শুধু এই রাজ্যই নয়, উত্তর পূর্বাঞ্চলের প্রায় সবকটি রাজ্যেই ছড়িয়েছে প্রবল অসন্তোষ৷

মঙ্গলবার রাজ্যসভায় তোলা হয়েছে বিলটি৷ আর তার আগে থেকেই প্রবল রাজনৈতিক উত্তাপে উত্তাল উত্তর পূর্ব ভারত৷ মিজোরামের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লাল থানহাওলা রাজধানী আইজলে একটি বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেন৷ তাঁর হাতেই ছিল ‘ইন্ডিপেন্ডেন্ট রিপাবলিক মিজোরাম’ লেখা পোস্টার৷ এর জেরে বিতর্কে জড়াচ্ছে কংগ্রেস৷ কারণ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লাল থানহাওলা প্রবীণ কংগ্রেস নেতা৷ তিনি এতদিন রাজ্যের কুর্সিতে ছিলেন৷

সদ্য মিজোরামে ক্ষমতা হারিয়েছে কংগ্রেস৷ এই রাজ্যের নতুন মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা৷ তিনি মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্টের নেতা৷ তিনিও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদ করেছেন৷ তবে সব কিছু ছাড়িয়ে গেলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লাল থানহাওলা৷

একনজরে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল:
প্রতিবেশী মুসলিম প্রধান দেশগুলি (পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান) থেকে অ-মুসলিমরা আবেদন করলেই ভারতে নাগরিকত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় সরকার ও বিজেপি৷ মিজোরাম সহ উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন রাজ্যে চলছে তারই প্রতিবাদ৷ অভিযোগ, এই বিল আইন করা হলে সীমান্তবর্তী বাংলাদেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে হিন্দুরা ভারতে ঢুকে পড়বেন৷ একইসঙ্গে আসবেন সেই দেশে থাকা উপজাতি চাকমা সম্প্রদায়ের বহু মানুষ৷ এর জেরে শুরু হবে জাতিগত সংঘাত৷ কারণ দীর্ঘ সময় ধরেই বাংলাদেশি বাংলাভাষীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ছড়িয়ে রয়েছে অসম, মেঘালয়, মনিপুর, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল প্রদেশে৷ আর বুদ্ধিজীবীদের একাংশের দাবি, ধর্ম নিরপেক্ষ ভারতে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদান হল সংবিধান বিরোধী কাজ৷ সেটাই করছে হিন্দুত্ববাদীরা৷

উত্তপ্ত উত্তর পূর্বাঞ্চল:
স্থানীয় উপজাতি সংগঠনগুলির যৌথ মঞ্চ ‘নেসো’ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে লাগাতার বিক্ষোভ জারি রেখেছে৷ অসম রীতিমতো উত্তপ্ত৷ রাজধানী গুয়াহাটি সহ একাধিক স্থানে রাজপথ অবরোধ করা হয়েছে৷ বিজেপি পরিচালিত সরকারের জোট ছেড়ে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা অসম গণ পরিষদ নেতা প্রফুল্ল কুমার মোহন্ত৷

মেঘালয়ে ছড়িয়েছে সেই ক্ষোভ৷ রাজধানী শিলংয়ে হচ্ছে প্রতিবাদ মিছিল৷ মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা হুমকি দিয়েছেন সরকার পতনের৷ মনিপুর খুবই উত্তপ্ত৷ রাজধানী ইম্ফল বিচ্ছিন্ন করার হুমকি দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা৷ মুখ্যমন্ত্রী এন বীরেন সিং সরকারের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিরোধীদের সমর্থন করেছেন৷ অরুণাচলের রাজধানী ইটানগরেও ক্ষোভ ছড়াচ্ছে৷

ত্রিপুরার একাধিক স্থানে হয়েছে মশাল মিছিল৷ গত ৮ জানুয়ারি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে বনধ চলাকালীন পশ্চিম ত্রিপুরার মাধববাড়িতে উপজাতিদের উপর গুলি চালায় পুলিশ৷ তারপর থেকে প্রবল বিজেপি বিরোধী ক্ষোভ ছড়িয়েছে এই রাজ্যে৷ মঙ্গলবারও আগরতলায় হয়েছে মশাল মিছিল৷ রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সিপিএমের তরফেও বিলটির বিরোধিতা করা হয়েছে৷