জেরুজালেম ও তেহরান: যে গুপ্তচর সংস্থার নজর এড়ানো সত্যি করেই কঠিন তার চোখকে ফাঁকি দিয়ে দিনের পর দিন গোপন তথ্য পাচার করছিলেন মন্ত্রী৷ ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে এমন অভিনব স্পাইং ঘিরে তুমুল আলোড়ন ছড়িয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে৷ অভিযুক্ত ব্যক্তি ইজরায়েলের প্রাক্তন জ্বালানী মন্ত্রী৷ আর তাঁর দেশের মোসাদ হল দুনিয়ার সর্বশ্রেষ্ঠ চর সংস্থার একটি৷

দুরন্ত সেই মোসাদের নাকের ডগায় থেকেও কী করে দেশের প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য গোপনে হস্তান্তরিত করতেন মন্ত্রীমশাই তাই এখন বিশ্লেষণ করা হচ্ছে৷ ধৃত ইজরায়েলি প্রাক্তন মন্ত্রী গোনেন সেগেভ তাঁর অপরাধ স্বীকার করেছেন৷ সেই ভিত্তিতে আদালত তাঁকে ১১ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে৷

জেরুজালেম থেকে ইজরায়েলি সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, প্রাক্তন মন্ত্রী গোনেন সেগেভ ১৯৯২ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৫-৯৬ সালে তিনি জ্বালানি মন্ত্রী হয়েছিলেন৷ যুদ্ধক্ষেত্র ও দেশের গুরুত্বপূর্ণ পরিকাঠামো সংক্রান্ত তথ্য তিনি তুলে দিয়েছেন ইরানের হাতে৷ সেই সময়ে তিনি ইরানি গুপ্তচর সংস্থার এজেন্ট হয়ে মন্ত্রিত্বের আড়ালেই চরবৃত্তি চালিয়েছিলেন৷ সেই সব তথ্যের মধ্যে আরও রয়েছে, ইজরায়েলি মন্ত্রী ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত কর্মকর্তাদের বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য৷

ইজরায়েলের অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা বিভাগ শেন বেথ৷ তারা প্রাক্তন মন্ত্রীর এই গুপ্তচরবৃত্তির তদন্ত করেছে৷ তদন্তে উঠে এসেছে, ৬২ বছর বয়সী সেগেভ ইজরায়েলের প্রতিরক্ষা বিভাগে এমন কিছু ব্যক্তিকে নিযুক্ত করেছেন যাদের সঙ্গে অন্য দেশ বিশেষ করে ইরানের যোগ রয়েছে৷ যা চরম বিপজ্জনক৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধু রাষ্ট্র ইজরায়েল হল ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের ঘোরতর বিরোধী৷ তেহরান ও ওয়াশিংটনের মধ্যে লাগাতার কূটনৈতিক সংঘাত চলে৷ তার মাঝেই ইজরায়েলকেও হুমকি দেয় তেহরান৷ পাল্টা ইজরায়েলের তরফেও কড়া বার্তা দেওয়া হয়৷ জেরুজালেমে ইরানি গুপ্তচর হয়ে কাজ করার অভিযোগে ধৃত মন্ত্রীর সংবাদে আলোড়ন ছড়িয়েছে তেহরানের কূটনৈতিক মহলেও৷