লখনউ: ভারতের প্রাক্তন ওপেনার ও অভিজ্ঞ ক্রিকেট প্রশাসক চেতন চৌহানকে ভেন্টিলেটারে রাখা হয়েছে৷ তাঁর শারীরিক অবস্থা সংকটজনক৷

গত মাসে কোভিড-১৯ পজিটিভ আসার পর লখনউয়ের সঞ্জয় গান্ধী পিজিআই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল চেতন চৌহানকে৷ কিন্তু চিকিৎসার পরও করোনা থেকে পুরোপুরি সেরে উঠতে পারেননি৷ বরং আরও একটি সংক্রমণ তাঁর কিডনিতে আক্রান্ত হয়েছিল৷ পাশাপাশি রক্তচাপের সমস্যা তৈরি হয়৷ ফলে তাঁর মাল্টি-অর্গ্যান ফেলিওর হয়৷ বর্তমানে ৭৩ বছর বয়সি প্রাক্তন ভারতীয় ওপেনার তথা ক্রিকেট প্রশাসককে গুরুগ্রামের এক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷

শুক্রবার রাতে চৌহানের অবস্থার অবনতি ঘটে৷ ফলে তাঁকে চিকিৎসকরা ভেন্টিলেশন সাপোর্ট রাখা হয়েছে৷ ডিডিসিএ-র এক সিনিয়র অফিসার শনিবার পিটিআই-কে জানান, তিনি চৌহানের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রেখে চলেছেন৷ আজ ভোরে চেতন জি’র কিডনি-র সমস্যা দেখা যায়৷ পরে বহু-অঙ্গ কাজ কা বন্ধ করে দেয়। তিনি বর্তমানে লাইফ সাপোর্টে রয়েছেন। আমরা সকলেই প্রার্থনা করছি যে, তিনি এই যুদ্ধেজয়ী হন৷’

তাঁর ১২ বছরের দীর্ঘ ক্রিকেট কেরিয়ারের ৪০ টেস্ট খেলেছেন চৌহান৷ ১৬টি হাফ-সেঞ্চুরির সাহায্যে ২০৮৪ রান করেন প্রাক্তন ভারতীয় ওপেনার৷ সুনীল গাভাস্করের সঙ্গে অনেক ভারতীয় ইনিংস শুরু করেছেন চৌহান৷ ভারতের হয়ে তাঁর ও গাভাস্করে ওপেনিং জুটি একসময় দুর্দান্ত৷ এই জুটি ১২টি সেঞ্চুরি-সহ ৩০০০ রান করেছেন৷

চৌহান অস্ট্রেলিয়া সফরে ভারতীয় দলের ম্যানেজার ছিলেন৷ এছাড়া ক্রিকেট প্রশাসক হিসেবে দীর্ঘদিন ডিডিসিএ-র পদ সামলেছেন৷ ডিডিসিএ-র প্রেসিডেন্ট, ভাইস-প্রেসিডেন্ট এবং সচিব ছিলেন৷ এছাড়াও জাতীয় প্রধান নির্বাচকের পদ সামলেছেন প্রাক্তন এই ভারতীয় ওপেনার৷ ১৯৮১ সালে তাঁকে অর্জুন পুরষ্কারে ভূষিত করা হয়েছিল।

ক্রিকেটের পাশাপাশি রাজনীতিতেও হাত পাকিয়েছেন চৌহান৷ ১৯৯১ ও ১৯৯৯ সালে উত্তর প্রদেশের আমরোহা থেকে লোকসভায় নির্বাচিত হয়েছিলেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।