নয়াদিল্লি: ফের বিজেপিতে যোগ দিলেন আর এক বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা। শুক্রবার দিল্লিতে বিজেপির হেডকোয়ার্টারে মন্ত্রী পীযূষ গোয়েলের উপস্থিতিতে বিজেপিতে যোগ দেন ভুবনেশ্বর কলিতা।

কংগ্রেস থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন কিছুদিন আগেই। মাত্র কয়েকদিন বাদেই বিজেপিতে যোগ দিলেন ভুবনেশ্বর কলিতা। জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার, সংবিধানের ৩৭০ ধারার প্রয়োগ সেখানে রদ করার সরকারি পদক্ষেপের বিরোধিতা করে কংগ্রেসের অবস্থান মানতে না পেরে দল ছাড়েন তিনি।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৩৭০ ধারা বাতিল, জম্মু ও কাশ্মীরকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভেঙে দেওয়ার বিল রাজ্যসভায় পেশ করেন, সেদিনই কংগ্রেস থেকে তাঁর পদত্যাগ গৃহীত হয়। এই নেতা ছিলেন রাজ্যসভায় কংগ্রেসের মুখ্য সচেতক। ২০২০-র ৯ এপ্রিল পর্যন্ত রাজ্যসভায় তাঁর মেয়াদ ছিল।

এই নিয়ে কংগ্রেসের ২ জন রাজ্যসভা সাংসদ বিজেপিতে গেলেন। এর আগে অমেঠির সাবেক রাজ পরিবারের সদস্য সঞ্জয় সিংহ কংগ্রেস ত্যাগ করে শাসক শিবিরে সামিল হয়েছেন।

কংগ্রেস ছেড়ে এবং রাজ্যসভা থেকে ইস্তফা দিয়ে তিনি সরাসরি জানিয়েছিলেন, যে তিনি বিজেপিতেই যাচ্ছেন। সেইমত যোগ দেন বিজেপিতে।

আমেঠির নরেশ নামে দীর্ঘদিল দলে পরিচিত ছিলেন তিনি। তাঁর স্ত্রী অমিতা সিং-ও কংগ্রেস থেকে পদত্যাগ করেছেন। আমেঠি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে পর পর দু’বার জয়ী হয়ে বিধায়ক হয়েছিলেন তিনি। ২০০২ সালে কংগ্রেসের টিকিটে জিতেছিলেন আর ২০০৭ সালে বিজেপির টিকিটে জয়ী হন। পরের বিধানসভা ভোটে সঞ্জয় সিংয়ের প্রথম স্ত্রী গরিমা সিংয়ের কাছে হেরেছিলেন অমিতা।

সঞ্জয় সিং-এর মতে কংগ্রেস এখনও অতীতে আঁকড়েই পড়ে আছে। ভবিষ্যত নিয়ে এদের কোনও চিন্তা ভাবনা নেই। তাঁর দাবি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই একমাত্র দেশের স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন। সেকারণেই তিনি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন।

২০১৪ সালে সঞ্জয় ছিলেন রাজ্যসভার প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে ধনী। ২০.৬২ কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক তিনি। লাইসেন্স সহ আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে তাঁর কাছে। দুটি পিস্তল, দুটি ডিবিবিএল বন্দুক, একটি কারবাইন এবং একটি রাইফেল রয়েছে। এছাড়াও ৯৬.৭৭২ একর কৃষি জমির মালিক তিনি।