নয়াদিল্লি: দাম্পত্যে জোর করে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন বা ‘marital rape’ ভারতে অপরাধ হিসেবে গণ্য হওয়া উচিত নয়, এমন মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র৷ টাইমস অব ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত এই খবর থেকে জানা যাচ্ছে, দীপক মিশ্র-র মতে, এই বিষয়টি নিয়ে কোনও আইন প্রণয়নের প্রয়োজন নেই বলেই তিনি মনে করেন৷

বেঙ্গালুরুতে এই কেএলই সোসাইটিজ ল কলেজের একটি কনফারেন্সে তিনি এই ধরণের মন্তব্য করেন বলে জানা গিয়েছে৷

প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি জানান, ‘marital rape’-কে ভারতে অপরাধ হিসেবে মনে করা উচিত নয়৷ তা নাহলে এর থেকে পরিবারে সবথেকে বেশি সমস্যার সূত্রপাত হবে৷ অন্য দেশ তেকে এই ধরণের একটি চিন্তাভাবনা এদেশে এলেও, ভারতে তাকে আইন হিসেবে প্রণয়ন করা কখনোই ঠিক হবে না বলে তাঁর মত৷ উল্লেখ্য, আইপিসি ৩৭৫ ধারা অনুযায়ী ১৮ বছরের বেশি বয়সের স্ত্রীর সঙ্গে স্বামী শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করলে তা ধর্ষণ হিসেবে বিবেচিত হবে না৷

২০১৭ সালে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, বৈবাহিক ধর্ষণ অপরাধ বলে বিবেচিত হলে বিবাহিত পুরুষরা প্রতিনিয়তই সমস্যায় পড়তে পারে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.