স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাজ্যের বনমন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মণের গাড়িতে চলল হামলা৷ তাঁর গাড়ি ও তাঁকে লক্ষ্য করে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা বলে অভিযোগ৷ তবে নিরাপত্তারক্ষী থাকায় কোনওমতে বেঁচে যান তিনি৷ কোনও আঘাত তাঁর লাগেনি বলেই খবর৷

যদিও তাঁর গাড়িতে ভাঙচুর চালানোর খবর মিলেছে৷ কোচবিহারের মাথাভাঙা ২ নম্বর ব্লকের বড় শোলমারি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে৷ নিজের নির্বাচনী এলাকার বড় শোলমারি গ্রামে হাজির হয়েছিলেন বনমন্ত্রী৷ লোকসভা নির্বাচনের ফল নিয়ে আলোচনা করার জন্য বৈঠক করার কথা ছিল তাঁর৷

সেখানেই হামলা চলে তাঁর গাড়িতে৷ বিজেপি সমর্থকরা এই হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ বনমন্ত্রী ও স্থানীয় তৃণমূলের৷ তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি৷ বনমন্ত্রীকে দেখে গো ব্যাক শ্লোগান ওঠে বলে অভিযোগ৷ ফলে উত্তেজনা ছড়ায়৷ এরপরেই মন্ত্রীকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যায় তাঁর নিরাপত্তারক্ষীরা৷

আরও পড়ুন : ঘাটালে তৃণমূলের পার্টি অফিস পুড়ে ছাই, অভিযুক্ত বিজেপি

এদিন সাংবাদিকদের এই হামলা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, “বিজেপি কর্মীরা এই কাজ করেছে। আমি এখন ভোটের পর্যালোচনা করছি। বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েতে ঘুরছি। এই সব কাজ সেরে কাল বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ বড় সলমনি গ্রামে মাথাভাঙ্গা দুই নম্বর ব্লকে আমাদের পার্টি অফিসে এসে বসি। আমাদের কর্মীরাও ছিল। আলোচনা চলছিল। এর মিনিট কুড়ি বাদে বেশ কিছু ছেলে এসে আচমকা ইট ছুঁড়তে শুরু করে। আচমকা ঘটনায় আমরা দ্রুত অফিসের ঘরে ঢুকে জানলা বন্ধ করে দেই। বাইরে আমার দেহরক্ষীরা পুলিশকে খবর দেয়। তখনও বাইরে থেকে শুনতে পাচ্ছি নোংরা ভাষায় গালিগালাজ চলছে। পুলিশ আসতে ওই ছেলেগুলোকে সরিয়ে দেয়। আমি ও আমাদের কয়েকজন কর্মী বেড়িয়ে এসে গাড়ি করে যাব বলে প্রস্তুতি নিচ্ছি। গাড়িতে উঠতে যাব , আবার ইট ছুঁড়তে শুরু করে ওঁরা। আমার গায়ে লেগেছে।’

তিনি আরও বলেন, “এরপর পুলিশের বড় দল দেখে ওরা পালিয়ে যায়। পরে আবার শুনলাম আমাদের পার্টি অফিসের তালা ভেঙে ঢুকে টিভি জানলা দরকা ভেঙে তছনছ করেছে। সমস্ত কাগজ পত্র পুড়িয়ে দিয়েছে। আমরা এতো বছর রাজনীতি করছি আগেও এই ঘটনা ঘটেছে। আবার সেই ঘটনা হচ্ছে। আমরা জানি এরা যারা এইসব কাণ্ড ঘটাচ্ছে তারা সিপিএমের লোক, দল পরিবর্তন করে বিজেপিতে এসেছে কিন্তু স্বভাব যাবে কোথায়? আমি পুলিশে দুই তিন জনের নাম দিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছি। পুলিশের কাছে ভিডিও রয়েছে। দেখে ব্যবস্থা নেবে।”