স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি : সকাল থেকেই মেঘলা আকাশ। মৌসুমী বায়ুর অক্ষরেখা বিস্তৃত রয়েছে বিকানির থেকে উত্তর পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত। পাশাপাশি একটি ঘূূূর্ণাবর্ত ও নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের ওপর। এই দুইয়ের জেরে হিমালয়ের পাদদেশ ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় চারদিক থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয়বাষ্প ঢুকে‌ছে। এরজন্য আগামী ২৪ ঘন্টা‌য় ফের বজ্রবিদ‍্যুৎ সহ ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে উত্তর‌বঙ্গে।

মূলত জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও দার্জিলিং সহ দুই দিনাজপুরে এই বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা‌য় আবহাওয়া দফতর।

জলপাইগুড়ির কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের আবহাওয়া বিজ্ঞানী রনেন্দ্র সরকার বলেন, “পশ্চিম‌বঙ্গের একটি অংশের ওপর দিয়ে আগে থেকেই ঘূর্ণাবর্ত ও নিম্নচাপ রয়েছে। এছাড়া বিকানির থেকে বঙ্গোপসাগর উত্তর পূর্ব পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। এই দুইয়ের জেরে আগামী ২৪ ঘন্টা‌য় উত্তর‌বঙ্গের পাঁচ জেলা‌য় বজ্রবিদ‍্যুযৎ সহ ফের ভারি থেকে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।”

অন্যদিকে মঙ্গলবারেও দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। তবে বৃষ্টি হবে বিক্ষিপ্তভাবে। কোথাও হঠাৎ করেই ব্যাপক বৃষ্টি হতে পারে। কোথাওবা আবার প্রচুর মেঘ জমলেও অল্প বৃষ্টি নিয়েও খান্ত থাকতে হতে পারে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।

নিম্নচাপের জেরে যে বেশ কয়েকদিন দক্ষিণবঙ্গে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে সে কথা জানিয়েছিল হাওয়া অফিস। সেই আবহাওয়াই বর্তমান দক্ষিণের জেলাগুলিতে। তবে পরে আবার জানানো হয়েছিল ব্যাপক বৃষ্টি হবে। কোনও কোনও জেলায় কমল সতর্কতা জারি করা হয়েছিল।

বেসরকারি বিদ্যুৎ পরিবহণ সংস্থার পক্ষে এমনও বলা হয়েছিল যে বৃষ্টির জেরে বিদ্যুৎ পরিবহণ পর্যন্ত বন্ধ হতে পারে তাও আবার সিইএসসি এলাকায়। অর্থাৎ কলকাতা ও তাঁর পার্শ্ববর্তী শহরাঞ্চলে ব্যাপক বৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি ছিল। কিন্তু মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আবহাওয়ার গতি প্রকৃতি সেই বলছে বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হবে দক্ষিনের জেলাগুলিতে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।