ফিলাডেলফিয়া: বয়স তার ১৪৷ যে বয়সে পৃথিবীকে অন্য চোখে দেখার কথা৷ সেখানে মাত্র ১৪-তেই সে দেখে নিয়েছে এক ভয়াল বাস্তব৷ ১০ বা ২০ নয়৷ সংখ্যাটা গুণে গুণে ১০০০৷ হ্যাঁ ১০০০জনের কামনার আগুণেই প্রতিনিয়ত দগ্ধ হয়েছে ওই ছোট্ট শরীর৷

ফিলাডেলফিয়ায় দেহ ব্যবসা এবং মানুষ পাচারের দল ক্রমশই সক্রিয় হয়ে উঠছে বলে জানা গিয়েছে৷ অনেকসময় ধরপাকোড় চলে পুলিশের, কিন্তু তাও ফাঁক গলে এখনও চলছে এমন ধরনের কাজ৷ তবে এবার এক নাবালিকার একটি মোটেলের বিরুদ্ধ করা মামলাতে কেচো খুঁড়তে বেরিয়েছে কেউটে৷ এই মোটেরটি অপরাধমূলক কাজ করার একটি নিরাপদ জায়গা হয়ে উঠেছিল সকলের অলক্ষ্যে৷

আরও পড়ুন: মদ খেয়ে ভিড় বাসের মধ্যে অবাধ যৌনতায় মাতলেই এই দম্পতি!

নির্যাতিত ওই মেয়েটির আইনজীবী জানান, মেয়েটিকে হোটেলে দু’বছর বন্দি করে রাখা হয়, আর ঠিক এই দীর্ঘ সময়েই ১০০০জনেরও বেশি পুরুষ তাঁর সঙ্গে জোর করে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে৷ তাঁর দাবি, হোটেল মালিকেরা ভাড়াতে রুম দিয়ে এমন ঘৃণ্য কাজ করিয়ে মোটা টাকা লাভ করে৷ তিনি ৫০,০০০ডলারেরও ক্ষতিপূরণ দাবি করেন৷

জানা যায়, কোন বিষয়ে মা-বাবার সঙ্গে বিবাদের পর ওই মেয়েটি বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়৷ তারপরে সে এমন অবস্থার স্বীকার হয় সে৷ অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে৷ সমগ্র ঘটনার জন্য নির্যাতিতার পরিবার এবং আইনজীবী দায়ী করছে ওই হোটেলের মালিককে৷