কলকাতা: মৃত্যুর ১৮ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে বাড়িতেই পরে রইল করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধার দেহ৷ ১২ ঘন্টা পর মিলেছে ডেথ সার্টিফিকেট৷ স্বাস্থ্য দফতর,পুলিশ,পুরসভা সহ বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করেও কোনও সাহায্য পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ৷ ঘটনাটি ঘটেছে বাগুইআটি থানা এলাকায়৷

জানা গিয়েছে, বাগুইআটি থানার কেষ্টপুরের তিন নম্বর সমরপল্লীর বাসিন্দা উষারানি মণ্ডল৷ বয়স ৭৫ বছর৷ তিনি গত ৪-৫ দিন ধরে জ্বর, সর্দি-কাশির উপসর্গ নিয়ে ভুগছিলেন৷ স্থানীয় একজন ডাক্তারকে দেখানো হয়৷ তার পরামর্শেই করোনা পরীক্ষা হয়৷ সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷

তারপর পজিটিভ রিপোর্ট নিয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ঘুরেও ভর্তি করা যায়নি৷ অভিযোগ,সরকারি থেকে বেসরকারি সব হাসপাতাল বেড নেই বলে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়৷ ফলে বাড়িতেই কার্যত বিনা চিকিৎসায় তার মৃত্যু হয়ে বলে অভিযোগ৷ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হওয়ার পর ডেথ সার্টিফিকেট পেতেও সমস্যা দেখা দেয়৷ পরে শুক্রবার সকালে ডেথ সার্টিফিকেট পাওয়া যায়৷

তারপর দেখা দেয় সৎকারে সমস্যা৷ অভিযোগ, স্বাস্থ্য ভবন, বাগুইআটি থানার পুলিশ, পুরসভাসহ বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করেও কোনও সাহায্য পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ৷ অবশেষে মৃত্যুর ১৮ ঘণ্টারও বেশি সময় পর পুলসভা ও পুলিশের সহযোগিতায় মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয় শ্মশানে৷

এর আগেও এই ধরনের একাধিক অমানবিক ঘটনার সাক্ষী শহর ও শহরতলী৷ কিছুদিন আগে প্রায় ১৪ ঘন্টা বাড়িতে পরে ছিল করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধের দেহ৷ ঘটনাটি ঘটেছিল বেহালার সাহাপুরে৷

এখানেও অভিযোগ, স্থানীয় কাউন্সিলর ও স্বাস্থ্যভবনে বারবার যোগাযোগ করেও কোনও সাড়া পায়নি ওই পরিবার৷ প্রায় ১৪ ঘন্টা পর ওই বাড়িতে যায় স্থানীয় থানার পুলিশ৷ অবশেষে পুরসভা ও পুলিশের সহযোগিতায় সৎকারের ব্যবস্থা করা হয়৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা