নয়াদিল্লি: এবার ট্রেনের চা এবং অন্যান্য খাবারের জন্য আগের থেকে বেশি টাকা খরচ করতে হবে ভ্রমণকারীকে। রাজধানী শতাব্দী, দুরন্তের মতো হাই প্রোফাইল দূর পাল্লার ট্রেনে চা- ও খাবারের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলবোর্ড। এক সময়ে টিকিটের দামের সঙ্গেই এই খাবারের দাম ধরা থাকত। পরে তা অবশ্য ঐচ্ছিক করে দেওয়া হয়েছে। তবে এখনও বহু যাত্রী টিকিটের দামের সঙ্গেই খাবারের দাম মিটিয়ে দিয়ে থাকেন। সেক্ষেত্রেও যাত্রীদের এবারে বাড়তি মূল্য চোকাতে হবে। জানুয়ারি মাস থেকেই এই সব ট্রেনগুলিতে বর্ধিত দাম কার্যকর করা হবে বলে রেল সূত্রে খবর ।

রেল বোর্ডের ওই নির্দেশিকা অনুসারে এই ট্রেনগুলিতে প্রথম শ্রেণির এসি এবং এক্সিকিউটিভ ক্লাসে ভ্রমণকারীদের এক কাপ চায়ের জন্য দাম দিতে হবে ৩৫ টাকা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ব্রেকফাস্টের দামও। লাঞ্চ–ডিনারের ক্ষেত্রেও দাম বাড়ছে। পাশাপাশি খাবারের দাম বাড়ছে সেকেন্ড ক্লাস এসি, থার্ড ক্লাস এসি এবং চেয়ার কারেরও। এবার থেকে যাত্রীদের ৬ টাকা বেশি দিতে হবে এক কাপ চায়ের জন্য। রেল বোর্ডের নির্দেশিকায় জানিয়েছে, দেশের বিভিন্ন এলাকার খাবারও এবার মিলবে ট্রেনে। রেলকর্তাদের বক্তব্য, জিনিসপত্রের দাম বাড়লেও বহুদিন খাবারের দাম বাড়েনি এবার তাই দাম কিছুটা বাড়ানো হল৷

তাছাড়া খাবারের পদ অনুযায়ী খাবার বিক্রির ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। এতদিন রেলের পরিভাষায় খাবারে নন-ভেজ মিল বলতে মূলত খাবারের সঙ্গে ডিম দেওয়া হতো। কেউ চিকেন খেতে চাইলে তখন তাঁকে আ-লা-কার্টে হিসেবে আলাদা দাম দিয়ে কিনতে হত। নয়া নির্দেশিকায় নন-ভেজ মিল হিসেবে ডিমের পাশাপাশি চিকেন কারি রাখা হয়েছে।

এমনিতেই ট্রেনে খাবারের মান নিয়ে প্রায়শই অভিযোগ করে থাকেন যাত্রীরা। তার উপরে এভাবে খাবারের দাম বৃদ্ধির কথা জানাজানি হতে যাত্রীরা চাইছেন, এবার যেন খাবারের মানের দিকে নজর দেয় রেল। কেল কর্তারাও এই ব্যাপারে আগামী দিনেও নজরদারি রাখতে চান এবং খাবার নিয়ে অভিযোগ প্রমাণ হলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবা হয়েছে৷ তাছাড়া রেলের খাবারে আ-লা-কার্টে (পদ অনুযায়ী দাম) ব্যবস্থার বেশ রমরমা ছিল এবং তার সুযোগ নিয়ে অনেক সময় বেশি দর চাওয়া হতো বলে অভিযোগ উঠতে দেখা গিয়েছে। তা মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই খাবারে ‘বার কোড’ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।