রূপচর্চায় সর্বাধিক গুরুত্ব পায় আমাদের মুখ৷ তারপর আসে হাত এবং পা৷ তারপর, অন্যান্য বডি পার্টগুলি৷ বেশিরভাগ সময়ই আমরা গুরুত্ব দিই না আমাদের ঘাড়ের অংশকে৷ যার ফলে অনেক সময় বিচ্ছিরি কালো ছোপও দেখা যায়৷ সুন্দর গ্লোয়িং মুখ আর শুষ্ক, দাগে ভরা ঘাড়৷ যা খুবই বেমানান৷ অনেকে চটজলদি সলিউশন পেতে দৌড়োন বিউটি পার্লারে৷ পকেটের টাকা তো যায় কিন্তু মেলে না মনমত সমাধান৷

কিন্তু, বাড়িতে বসেই পেতে পারেন এই জেদি সমস্যার সমাধান৷ খুবই কম খরচে৷ যেখানে প্রয়োজন কয়েকটি সাধারণ গৃহস্থালী দ্রব্যের৷ যেগুলির নিয়মিত ব্যবহার ম্যাজিকের মত কাজ করবে৷ আর, নিমেষে ছু মন্তর করবে দাগের সমস্যাকে৷ তালিকাতে রইল একাধিক ঘরোয়া উপাদান৷

১) বেসন- বেসনের পদ খেতে কে না ভালবাসে৷ সে তেলেভাজাই হোক বা অন্যকিছু৷ হকের রকমের জিভে জল আনা পদ তৈরির এই উপাদান আপনার ত্বকের জন্যও ভীষণ উপকারী৷ ত্বককে করতে পারে গ্লোয়িং এবং ফ্রেস৷ ডেড সেল রিমুভ করতে মোক্ষম কাজ করে এটি৷ তাই এটিকে ব্যবহার করেই বানিয়ে ফেলতে পারেন হোমমেড প্যাক৷ প্যাক বানাতে বেসনের সঙ্গে অল্প হলুদ গুড়ো এবং গোলাপ জল মিশিয়ে নিন৷ এরপর, মিশ্রণটিকে ভাল করে ঘাড়ের উপর লাগিয়ে রেখে কিছুক্ষণ পর ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন৷

২) টমেটো- ব্রণের সমস্যায় টমেটো ভীষণই কার্ষকরী৷ এছাড়া, সানবার্ণ এবং ডালস্কিনের জন্যও বিশেষ উপকারী৷ অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের গুণে ভরপুর থাকে উপাদনটি৷ টমেটোর সঙ্গে অল্প মধু মিশিয়ে নিয়ে দাগের জায়গাতে লাগিয়ে নিন৷ কিছুক্ষণ পর ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন৷

৩) লেবু- ন্যাচারাল ব্লিচের কাজ করে লেবু৷ এছাড়া, লেবুতে প্রচুর পরিমান ভিটামিন সি থাকে যেটি স্কিন ব্রাইটেনিংয়েরও কাজ করে৷ অলিভ ওয়েলের সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন৷ ঘুমোতে যাওয়ার আগে স্কিনে অ্যাপ্লাই করুন৷ এক মাস টানা মিশ্রনটির ব্যবহার করুন৷ ফল পাবেন একবারে হাতেনাতে৷

৪) দুধ- কাঁচা দুধ ব্যবহার করতে পারেন ঘাড়ের দাগ তোলার জন্য৷ লো-ফ্যাটযুক্ত দুধ নিয়ে তুলোর সাহায্য ঘাড়ে দাগের অংশগুলিতে অ্যাপ্লাই করুন৷ ভাল করে শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে নিন৷ টানা এক মাস নিয়মিত লাগান৷ নিজের চোখেই দেখতে পারেন পরিবর্তন৷