নয়াদিল্লি: প্রত্যক্ষ কর এবং পণ্য পরিষেবা কর (জিএসটি), কোনওটির সংগ্রহই এবার এখনও প্রত্যাশিত জায়গায় পৌঁছয়নি। এহেন অবস্থায় শুক্রবার পদস্থ কর আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক সেরেছেন রাজস্ব সচিব অজয়ভূষণ পাণ্ডে। পরে তিনি জানিয়েছেন, চলতি আর্থিক বছরে কর সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে এবার কর ফাঁকি আটকানোর দিকে অতিরিক্ত নজর দিতে হবে।

প্রসঙ্গত, এর আগে পশ্চিমবঙ্গের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র তথা বিভিন্ন বিরোধী শাসিত রাজ্যের অর্থমন্ত্রীরাও সতর্ক করেছিলেন, জিএসটি সংগ্রহ বাড়াতে হলে করের হার বাড়ানোর বদলে কর ফাঁকি রোখার দিকে নজর দেওয়া জরুরি। পাশাপাশি রিটার্ন দাখিল করার ব্যাপারেও জর দেওয়ার কথা উঠছে । এ দিন কেন্দ্রীয় উচ্চপদস্ত আধিকারিকদের বৈঠকে যেন সেই সব পরামর্শকেই স্বীকৃতি দেওয়া হল।

অর্থবর্ষের শেষ চার মাসে অর্থমন্ত্রক ৪.৪৫ লক্ষ কোটি টাকা জিএসটি সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছিল। ইতিমধ্যে ঝিমিয়ে পড়া অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে কর্পোরেট কর কমানো হলেও প্রত্যক্ষ কর সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা ১৩.৩৫ লক্ষ কোটি টাকা রাখা হয়। এই পরিস্থিতিতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ কর পর্ষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সঙ্গে আলোচনায় সচিবের নির্দেশ, কর সংগ্রহের ক্ষেত্রে এবার গতি আনতে কী কী পদক্ষেপ করা হচ্ছে সেই বিষয়ে সাপ্তাহিক রিপোর্ট জমা দিতে হবে। পাশাপাশি করখেলাপিদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থাও নেওয়ার কথাও বৈঠকে উঠেছে বসে সূত্রের খবর। যদিও সাধারণ করদাতাদের যাতে হয়রানি না-হয় সে দিকটাও আধিকারিকদের মাথায় রাখতে বলা হয়েছে ৷