শ্রীনগর: যুদ্ধের আবহে দেশের একের পর এক বিমানবন্দরে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে৷ লেহ্, জ্মমু, শ্রীনগর, পাঠানকোট, অমৃতসর, ধর্মশালা, চন্ডীগড়, দেরাদুনে উড়ান সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷ নিরাপত্তা ব্যবস্থা সেই সঙ্গে কয়েকগুণ বাড়িয়ে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে৷

অমৃসর এযারপোর্ট ডিরেক্টর এপি আচার্য্য় সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে জানান, এই মুহূর্তে নিরাপত্তার কারণে অমৃতসরের কমার্সিয়াল বিমানের আসা-যাওয়া বন্ধ রাখা হয়েছে৷

প্রসঙ্গত, বুধবার সকালেই ভারতের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে ঢুকে পড়ে একটি পাক বিমান৷ ভারতীয় বায়ুসেনার সতর্কতায় সেটি পালিয়ে যায়৷ তবে যাওয়ার আগে পুঞ্চ, রাজৌরি সহ কয়েকটি স্থানে বোমা বর্ষণ করে এই পাক বিমান৷ তবে তাতে কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি ভারতের৷ এএনআই সংবাদ সূত্রে খবর, পাক যুদ্ধ বিমান F-16-কে নৌসেরা সেক্টরের লামবেইলীতে গুলি করে নামানো হয়৷

এই ঘটনার পরই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালকে ডেকে পাঠানো হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে৷ আলোচনার জন্য ডাকা হয় সব আধাসেনা বাহিনীর ডিজিদের৷ এরপরেই এখনও পর্যন্ত ভারতের ১০টি বিমানবন্দর বিমান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে৷ জারি হাই অ্যালার্ট৷

মঙ্গলবার বালাকোটে ভারতের এয়ার স্ট্রাইকের পরই দুই দেশের মধ্যে পরিস্থিতি আরও কঠিন হয়। সীমান্তে যুদ্ধের আশঙ্কা তৈরি হয়। তাই ভারতে বেশ কয়েকটি বিমানবন্দর থেকে বিমান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তানও। তারাও বেশ কয়েকটি বিমানবন্দরে উড়ান বন্ধ রাখছে বলে খবর।