ছবি- প্রতীকী

কলকাতা: মুর্শিদাবাদ থেকে ধৃত জঙ্গিদের রাতেই কলকাতা থেকে দিল্লি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বিশেষ বিমানে৷ কড়া নিরাপত্তায় তিনটি বিমানে ৬ জনকে নিয়ে যাওয়া হবে৷ ধৃতদের আগামীকাল মঙ্গলবার দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টে তোলা হবে৷ এমনটাই সূত্রের খবর৷

সোমবার সন্ধ্যার পর ধৃত জঙ্গিদের সল্টলেক NIA অফিস থেকে কলকাতা বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখান থেকে রাতেই এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ বিমান জঙ্গিদের নিয়ে দিল্লির উদ্দেশে রওনা দেবেন NIA আধিকারিকরা৷ সন্দেহভাজন ৬ জঙ্গিকে আগামীকাল মঙ্গলবার দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টে তোলা হবে৷

সেখানে ফের নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জিঞ্জাসাবাদ করার জন্য আবেদন করবে জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনআইএ)৷ সোমবার সল্টলেক NIA অফিস থেকে কড়া নিরাপত্তায় বেশ কয়েকটি গাড়িতে করে মুর্শিদাবাদে ধৃত জঙ্গিদের কলকাতা বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়৷

কিন্তু তার আগে দফায় দফায় জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনআইএ) এর গোয়ান্দাদের জিঞ্জাসাবাদ করেন ধৃত জঙ্গিদের ৷ তাতে অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য জানতে পেরেছেন গোয়ান্দারা৷

এনআইএ সূত্রে দাবি, ধৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গিয়েছে,ধরা পড়ার আগে শুক্রবার বিকেল থেকে সন্ধের মধ্যে সন্দেহভাজন ৬ জঙ্গি নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছে৷ বৈঠক হয়েছিল ধৃত আল মামুর এর মুর্শিদাবাদের বাড়িতে৷ প্রায় এক থেকে দেড় ঘণ্টা বৈঠক চলে৷

এবার গোয়ান্দারা জানার চেষ্টা করছে, ওই বৈঠকে কি আলোচনা হয়েছিল,বড় কোনও হামলার ছক কষা হয়েছিল কিনা ? যদি ছক কষা হয়ে থাকে,তাহলে কোন কোন জায়গা বেছে নেওয়া হয়েছিল৷ এছাড়া গোয়ান্দারা আরও দুই জঙ্গির নাম জানতে পেরেছে৷ তাদের একজনের নাম মামুন আনসারি৷

এই সন্দেহভাজন জঙ্গি পলাতক৷ তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনআইএ)৷ গত শনিবার ভোররাতে মুর্শিদাবাদ থেকে ধৃত জঙ্গি আবু সুফিয়ানের ফোন ঘেঁটে তদন্তকারী আধিকারিকরা জানতে পেরেছে,এদের ২২ সদস্যের একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছিল।

যে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের পুরো কথোপকথনই ছিল ডিলিটেড ফর্ম্যাটে। অর্থাত মুছে দেওয়া হয়েছিল পুরো কথোপকথনই। এছাড়া আরও একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের নাম পেয়েছে গোয়ান্দারা৷ নতুন ওই হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের নাম ‘কিতল ফর ইসলাম৷

তবে জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনআইএ) এর তল্লাশির আগে মুর্শিদাবাদের রানিনগরের বাসিন্দা আবু সুফিয়ান মোল্লা পালানোর ছক কষছিল৷ তদন্তকারী সংস্থা তাঁদের যে খোঁজ পেয়ে গিয়েছে সেই ইঙ্গিত পেয়ে গিয়েছিল সুফিয়ান। আর তা পেতেই পালানোর ছক কষে।

যদিও এএনআইয়ের পাতা জালে ধরা পড়ে যায় সুফিয়ান। তাকে জেরা করেই আবু সুফিয়ানের বাড়িতে মিলেছে একটি সুড়ঙ্গের হদিশ। অন্যদিকে, বেশ কিছু নম্বর উদ্ধার করেছে এনআইএ। এই সমস্ত নম্বরগুলি কাশ্মীরের বলে তদন্তে উঠে এসেছে। সেগুলি বিস্তারিত খোঁজ চালানো হচ্ছে।

পাশাপাশি গত কয়েকদিনে ধৃত ছয় জঙ্গি কাদের কাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে সমস্ত বিস্তারিত খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

ইতিমধ্যেই জঙ্গি সংগঠন আল-কায়দার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মুর্শিদাবাদ থেকে ৬ জনের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহীতার অভিযোগ এনেছে জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনআইএ)৷ সূত্রে খবর, ধৃতদের বিরুদ্ধে UAPA আইনে ১৬, ১৭, ১৮, ১৮বি, ৩৮, ২০ ধারায় মামলা রুজু হয়েছে।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।