বেজিং: চিনে প্রথমবার করোনা ভ্যাকসিন নেওয়া ব্যক্তিরা ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর সুস্থ, এমনটাই জানানো হয়েছে চিনের তরফে।

মোট ১০৮ জনের মধ্যে এই পরীক্ষা চালানো হয়েছিল। এরমধ্যে মোট ১৮ জন তাঁদের কোয়ারেন্টাইনের পর্ব শেষ করে বৃহস্পতিবার বাড়ি ফিরে গেছে বলে জানা গিয়েছে। চিনের উহানে এরাই ছিল প্রথম ব্যক্তি, যাদের দেহে পরীক্ষা করা হয়েছিল এই সম্ভাব্য করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন।

বিশেষজ্ঞদের দল আরও ৬ মাস ওই ব্যক্তিদের ওপর নজরদারি চালাবে বলে জানানো হয়েছে। আগামী ৬ মাস ওই ব্যক্তিদের রক্ত নিয়ে তাতে নিয়মিত ভাবে অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করা হবে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এই ভ্যাকসিন কার্যকর এবং নিরাপদ প্রমাণিত হলে, তারা বিদেশে অতিরিক্ত পরীক্ষা করার পরিকল্পনা করছেন।

উল্লেখ্য, ১৭ মার্চ এই ভ্যাকদিনের পরেক্ষা চালানো হয়েছিল। ১৮ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে বয়স এমন মোট ১০৮ জন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি স্বেচ্ছায় এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। চিনা মিডিয়া জানিয়েছে, এদেরকে মোট ৩ ভাগে ভাগ করে পরীক্ষা চালানো হয়েছিল। এদেরকে উহানে হাসপাতালে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল।

পরীক্ষায় অংশ নেওয়া এক ব্যক্তি জানিয়েছে, এই পরীক্ষা চলাকালীন তাঁর শরীর সম্পূর্ণ রূপে ঠিক ছিল। তাঁর কোনও অসুবিধা হয়নি। তবে প্রথম দিকে হালকা ব্যাথার কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, এই সম্ভাব্য করোনা ভ্যাকসিন-এর ব্যাপারে তিনি অত্যন্ত আশাবাদী। অন্য এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, তিনি ওই ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেও সুস্থা ও স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন।

চিনের গবেষকরা বলেন, প্রথম পরীক্ষাটি যদি সফলভাবে এগিয়ে যায় তবে তারা আন্তর্জাতিকভাবে ভ্যাকসিন পরীক্ষা বাড়িয়ে দেবে। এই এপ্রিলেই সমস্ত পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে চিনা গবেষকরা।