স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সারদা কাণ্ডের প্রথম তদন্তকারী অফিসার, প্রভাকর নাথকে জিজ্ঞাসাবাদ করল সিবিআই৷ রাজ্য সরকার সারদা কাণ্ডে যখন প্রথম সিট গঠন করে, তখন তদন্তকারী অফিসার ছিলেন এই প্রভাকর নাথ৷ এর আগেও এঁকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল৷

ফের মঙ্গলবার সকালে সিজিও কমপ্লেক্সে ডেকে পাঠানো হয় তাঁকে৷ সিবিআইয়ের নোটিশের প্রেক্ষিতে সকালেই সিবিআই দফতরে যান প্রভাকর নাথ৷

এদিন বেশ কয়েক ঘণ্টা দফায় দফায় জেরা করা হয়৷ এর পরে সিবিআই দফতর থেকে চলে যান তিনি৷ তবে সংবাদমাধ্যমের কাছে কোনও কথা বলতে চাননি এই অফিসার৷ এর থেকে পরিষ্কার শুধু রাজীব কুমারই নয়, সেই সময় যে সব অফিসাররা ছিলেন তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নিতে চলেছে সিবিআই৷

এদিকে গতকাল সিবিআই সূত্রে খবর মেলে, সাতদিনের সময় রাজীব কুমারকে দিতে রাজি নয় তারা এবং সেক্ষেত্রে ১-২ দিনের মধ্যে ফের নোটিশ পাঠানো হতে পারে তাকে৷ যে আবেদন তার তরফে করা হয়েছিল, তা না মেনে ফের নতুন করে নোটিশ পাঠানো হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে৷

উল্লেখ্য, রবিবার সিবিআই নোটিশ দেওয়া সত্ত্বেও সোমবার সিবিআই দফতরে হাজিরা দিলেন না রাজীব কুমার। সূত্রের খবর, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার কাছে সময় চেয়ে নিয়েছিলেন তিনি। এদিন সকালে রাজীব কুমার না এলেও সিজিও কমপ্লেক্সে ঢুকতে দেখা যায় দুই সিআইডি অফিসারকে। রবিবার সিআইডি দফতর ভবানী ভবনেও নোটিশ দিয়েছিল সিবিআই। তাই পরের দিন তাদের হাজিরা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। একইসঙ্গে নির্বাচন শেষ হতেই রাজীব কুমারকে এডিজি সিআইডি পদে ফিরিয়ে এনেছে রাজ্য সরকার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।