ঢাকাঃ  ৬১৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ভুটান থেকে বাংলাদেশ পৌঁছল জাহাজ। পাথর নিয়ে একটি পণ্যবাহী জাহাজ বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে পৌঁছেছে। গত মঙ্গলবার সিমেন্ট তৈরির জন্য এক হাজার মেট্রিক টন পাথর নিয়ে জাহাজটি ব্রহ্মপুত্র নদ হয়ে ৬১৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে নারায়ণগঞ্জ বন্দরে পৌঁছেছে। আজ যদিও জাহাজ থেকে পাথর খালাসের কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

জানা যায়, ভুটান থেকে পাথর নিয়ে ভারতীয় এই জাহাজ অসমের ধুবরি থেকে ঢাকার বন্দরের দিকে যাত্রা শুরু করে। এই অনুষ্ঠানে ঢাকায় ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ জানিয়েছেন, ভুটান থেকে ভারত হয়ে বাংলাদেশে নদীপথে পাথর আমদানি দেশ তিনটির ট্রেডের এক নবসূচনা করল। এটি একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। শুধু তাই নয়, তিনি আরও জানিয়েছেন যে, এই ঐতিহাসিক উদ্যোগ ভারত-ভুটান-বাংলাদেশকে নিয়ে আমরা নতুন স্বপ্ন দেখতে পারি। আগামী দিনগুলোর বাণিজ্য এভাবেই হওয়া উচিত বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত হাইকমিশনার। তাঁর মতে, এতে তিন দেশের সম্পর্কের আরও উন্নতি ঘটবে এবং আমরা সেটিকে আরও নতুন ও উচ্চ মাত্রায় নিয়ে যাব।

ভূটানের রাষ্ট্রদূত সোনম টি রাবগি বলেন, এই উদ্যোগের মাধ্যমে বাণিজ্যিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে। এতে ভারত ভুটান ও বাংলাদেশ একদিকে উপকৃত হবে অন্যদিকে প্রতিবেশী দেশগুলির মধ্যাকার সম্পর্কের উন্নতি হবে। এতে পরিবহন ও অন্যান্য খরচও কমবে।

প্রসঙ্গত, গত ১২ জুলাই ‘এমভি এএসআই’ নামের ভারতের এই জাহাজটি অসমের ধুবরি থেকে যাত্রা শুরু করে। এরপর ব্রহ্মপুত্র নদ দিয়ে নারায়াণগঞ্জ পৌঁছয়। অসমের ধুবরি থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে ভুটানের ফুয়েন্টশোলিং থেকে ট্রাকে করে পাথর আনা হয়েছে। জাহাজটি এক হাজার মেট্রিক টন পাথর পরিবহন করছে, যা স্থলপথে পরিবহন করতে ৫০টিরও বেশি ট্রাক প্রয়োজন হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ভুটান সফর ও এপ্রিল ২০১৯ এ ভুটানের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের স্বার্থে অভ্যন্তরীণ নৌপথ ব্যাবহারের উদ্দেশ্যে একটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করা হয়েছিল। এর আওতায় এই পণ্যবাহী জাহাজ মঙ্গলবার বাংলাদেশে পৌঁছয়। যা ঐতিহাসিক হিসাবেই ব্যাখ্যা করছেন সে দেশের মানুষ।