তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: রাজ্যের মধ্যে প্রথম কোন ব্লক সদরে ও জেলায় চতুর্থ দমকল কেন্দ্র তৈরি হল বাঁকুড়ার তালডাংরায়। স্থানীয় ব্লক অফিস প্রাঙ্গণে নব নির্মিত এই দমকল কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন স্থানীয় বিধায়ক সমীর চক্রবর্তী। উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও, জেলা পরিষদের ‘মেন্টর’ অরূপ চক্রবর্তী, বাঁকুড়া পুরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত, তালডাংরার বিডিও সৌরভ মজুমদার, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অনুসূয়া রায় সহ দমকল দফতরের কর্মী-আধিকারিকরা।

জেলা সদর বাঁকুড়া, মহকুমা শহর বিষ্ণুপুর ও খাতড়ার পর এক মাত্র ব্লক সদর তালডাংরায় রাজ্য সরকারের উদ্যোগে দমকল কেন্দ্র তৈরি হওয়ায় খুশি ব্লক এলাকার মানুষ। এতদিন আগুন লাগার মতো ঘটনা ঘটলে এই এলাকার মানুষকে মূলত জেলা সদরে অবস্থিত দমকল কেন্দ্রটির উপর ভরসা করতে হত।

তালডাংরা ব্লক এলাকার প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে হিসেব করলে বাঁকুড়া শহরের দূরত্ব প্রায় ৫০ কিলোমিটার, মহকুমা শহর খাতড়ারদূরত্ব কম বেশী তাই। ফলে আগুন লাগার খবর পাওয়ার পর সংশ্লিষ্ট এলাকায় দমকল বাহিনী পৌঁছানোর আগেই যা ক্ষতি হওয়ার হয়ে যেত। এই অবস্থায় ব্লক সদরে দমকল কেন্দ্র তৈরি হওয়ায় দূরত্ব এক ধাক্কায় বেশ খানিকটা কমে গেল বলে অনেকে জানিয়েছেন।

দমকল সূত্রে খবর, নব নির্মিত তালডাংরা দমকল কেন্দ্রে আপাতত একটি ইঞ্জিন থাকছে। অফিসার সহ কর্মীর সংখ্যা নয়। প্রাথমিক পর্যায়ে এই দমকল কেন্দ্রের কর্মীদের ব্লক অফিসে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব নতুন ভবন তৈরি হয়ে যাবে। একই সঙ্গে এখানে দমকল কেন্দ্র তৈরি হওয়ার ফলে তালডাংরার পাশাপাশি সম্পূর্ণ সিমলাপাল, ইন্দপুর, রাইপুর, সারেঙ্গা, ইন্দপুর ও ওন্দার একাংশের মোট ১২ লক্ষ ৫৪ হাজার মানুষ উপকৃত হবেন।

এদিনের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে জেলা পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও বলেন, আমাদের জেলায় ২২ শতাংশ বনভূমি। জঙ্গলে আগুন লাগানোর ঘটনা প্রায়শই ঘটছে। সেই আগুন নেভানোর কাজে দমকলের বিশেষ ভূমিকা আছে। একই সঙ্গে নবনির্মিত দমকল কেন্দ্রের কর্মী আধিকারিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনাদের নিরাপত্তা সহ যেকোনো প্রয়োজনে পুলিশ প্রশাসন আপনাদের সঙ্গে আছে।

 

স্থানীয় বিধায়ক সমীর চক্রবর্তী জানান, বাঁকুড়া জেলায় মোট জনসংখ্যা ৩৬ লক্ষ। তালডাংরায় এই দমকল কেন্দ্র তৈরি হওয়ায় ১২ লক্ষ ৫৪ হাজার মানুষ নিরাপদ হলেন। মানুষের নিরাপত্তার কথা ভেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে মাত্র দু’বছরের মধ্যে এই দমকল কেন্দ্র যাত্রা শুরু করল বলে তিনি জানান।

তাঁর মতে, প্রথমে পুরুলিয়ার মানবাজার ব্লকে দমকল কেন্দ্র তৈরি হলেও সেটি এখন মহকুমা সদর। ফলে এই মুহূর্তে রাজ্যের একমাত্র ব্লক তালডাংরা যারা নিজস্ব দমকল কেন্দ্র পেল। প্রাথমিক পর্যায়ে ব্লক কার্যালয়ে দমকল কেন্দ্র কাজ শুরু করলেও আগামী দেড় বছরের মধ্যে এই কেন্দ্রের সম্পূর্ণ পরিকাঠামো তৈরি হয়ে যাবে। একই সঙ্গে প্রয়োজনে আরও দমকলের ইঞ্জিন বাড়ানো হবে বলে তিনি জানান।