স্টাফ রিপোর্টার,জলপাইগুড়ি: করোনা মোকাবিলায় সংকীর্ণ দলীয় রাজনীতিকে পিছনে ফেলে এগিয়ে এলেন দুই যুযুধান দলের যুব নেতা। আর এহেন উদ্যোগকে স্বাগত জানালেন সাধারন মানুষ।

জলপাইগুড়ি পুরসভার ১০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রদীপ দে তিনি সিপিএম দলের থেকে নির্বাচিত। পাশাপাশি তিনি ডিওয়াইএফআই-এর জলপাইগুড়ি জেলা সম্পাদক। অপরদিকে সৈকত চট্টোপাধ্যায় তিনি ১১ নং ওয়ার্ড থেকে তৃনমূলের টিকিটে নির্বাচিত হয়ে চেয়ারম্যান ইন কাউন্সিল হিসাবে দায়িত্ব সামলে বর্তমান পুর বোর্ডের একজন প্রশাসক। পাশাপাশি তিনি যুব তৃনমূলের জলপাইগুড়ি জেলার সভাপতি।

জলপাইগুড়ি পুর এলাকার ১০ নং ওয়ার্ডে গতকাল প্রথম করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান পাওয়া যায়। আর এরপরই শুরু হয় রাজনৈতিক রং ভুলে দুই যুব নেতার তৎপরতা। গতকাল থেকে দফায় দফার বিরোধী দলের দুই নেতা উপস্থিত থেকে ওই এলাকার প্রধান রাস্তা ( বাফার জোন) স্যানিটাইজের কাজ শুরু করেন।

শুক্রবার সকালে সাফাই কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তাঁদের দেখা যায় ওই কনন্টেইনমেন্ট জোনে জীবানুনাশক স্প্রে করতে। আর প্রশাসনের এমন তৎপরতায় খুশি পুর এলাকার মানুষজন। রাজনৈতিক রঙ ভুলে দুই নেতার সহযোগীতার জন্য এগিয়ে আসায় খুশি এলাকাবাসী৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।