স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: একশ চুয়াল্লিশ ধারার বেষ্টনীতে পরীক্ষা দিচ্ছেন পরীক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার থেকে শুরু মাধ্যমিকের সমস্ত কেন্দ্রের চার পাশে একশ চুয়াল্লিশ ধারা জারি করেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। ইতিমধ্যেই বালুরঘাট ও গঙ্গারামপুরে মাইকিং করে তা ঘোষণাও করে দেওয়া হয়েছিল।

এবারে দক্ষিণ দিনাজপুরে মাধ্যমিকে ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের সংখ্যাই বেশি। জেলায় এবারে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২০২৯৩ জন। তার মধ্যে মেয়েদের সংখ্যা ১১৭০৬ ও ছেলেদের সংখ্যা ৮৫৮৭ জন।

নির্বিঘ্নে সব কিছু সম্পন্ন করতে জেলার গঙ্গারামপুর ও বালুরঘাট দুই মহকুমায় মোট ৫৫টি কেন্দ্রে বসে পরীক্ষার্থীরা মাধ্যমিক দিচ্ছেন। এর মধ্যে ১১টি স্কুলকে মূল কেন্দ্র করা হয়েছে।

এবিষয়ে জেলাশাসক ডাঃ দীপপ্রিয়া পালরাজ জানিয়েছেন যে খুবই খুশির খবর যে দক্ষিণ দিনাজপুরে মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের মধ্যে মেয়েদের সংখ্যা অনেক বেশি। ছাত্রদের তুলনায় ৩০১১৯ সংখ্যক বেশি ছাত্রী এবারে পরীক্ষায় বসছেন।

রাজ্য সরকারের কন্যাশ্রী ও সবুজ সাথী সহ পড়াশুনা সংক্রান্ত প্রকল্প গুলির কারণে মেয়েদের মধ্যেও লেখাপড়া শিখে জীবনে কিছু করে দেখানোর উৎসাহ যে বেড়েছে। তারই প্রমান এটা বলে জেলাশাসক জানিয়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।