প্রতীকী ছবি

প্যারিস: যত দিন যাচ্ছে, ততই চেহারা পাল্টাচ্ছে করোনা ভাইরাস আর আরও বেশি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। প্রথমে জানা গিয়েছিল যে হাঁচি বা জাশির মাধ্যমে ড্রপলেট থেকেই করোনা ছড়ায়। কিন্তু এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্বীকার করেছে যে এই ভাইরাস কিছু মাত্রায় বায়ু বাহিত। তাই মানুষকে আরও বেশী সাবধান হতে হবে।

তবে এবার এক সদ্যজাত’র সংক্রামিত হওয়ার খবরে আতঙ্ক বেড়েছে আরও কয়েকগুন। মায়ের গর্ভেই সংক্রামিত হয়েছে সন্তান। এতদিন পর্যন্ত গর্ভবতী মহিলাদের হাই রিস্ক জোনে রাখা হয়েছিল। বলা হয়েছিল, তাদের সংক্রমণের ভয় বেশি। কিন্তু গর্ভ থেকে সন্তান সংক্রামিত হচ্ছে, এমন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

এবার এরকমই একটি ঘটনা ঘটল ফ্রান্সে। গর্ভের মধ্যেই ভাইরাসে সংক্রামিত হল সন্তান। অর্থাৎ, এ থেকে প্রমাণিত যে, এমনটা ঘটতে পারে। Nature Communications নামে একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে সেই রিপোর্ট।

গবেষণা করে দেখা গিয়েছে এমন ঘটনা ঘটেছে গত মার্চ মাসের শেষের দিকে। গর্ভাবস্থার ৩৫ তম সপ্তাহে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন বছর ২৩-এর এই মহিলা। তখন জ্বর আসে তাঁর। সন্তানের জন্মের পর দেখা যায়, তারও কিছু কিছু সমস্যা দেখা যাচ্ছে। পরীক্ষা করে দু’জনের শরীরেই ভাইরাস ধরা পড়ে। যদিও গবেষকরা জানাচ্ছেন, এমন ঘটনা সাধারণ নয়। তবে এমনটাও যে হতে পারে, সে ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে ক্লিনিকগুলিকে।

১৮ দিন পর অবশ্য সুস্থ হয়ে ওঠে ওই শিশু। তবে এমনটা সবসময়ই হয় কিনা তা দেখার জন্য অনেকগুলো নুমনা দরকার, যেমন মায়ের রক্তের নমুনা, ষন্তানের রক্তের নমুনা, কর্ড ব্লাড, প্লাসেন্টা ইত্যাদি। আর অতিমারীর মধ্যে এগুলি সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা সহজ নয়। তাই আপাতত এই প্রমাণ পাচ্ছেন না বিজ্ঞানীরা।
যদিও এই ধরনের রিপোর্ট গর্ভবতী মায়েদের জন্য আতঙ্কের এবং ভয়ের কারণ। তবে এগুলি সামনে এলে চিকিৎসার ক্ষেত্রে সুবিধা হয় ডাক্তারদের। সতর্কতাও নিতে পারেন তাঁরা।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।