কলকাতা: তৃণমূলের অর্জুন দল বদলে এখন গেরুয়া শিবিরে৷ ভাটপাড়ার বিধায়কের পাশাপাশি তিনিই আবার ওই পুরসভারও চেয়ারম্যান৷ আর্জুন সিং বিজেপিতে যোগদানের ফলে ওই পুরসভা কি ধরে রাখতে পারবে তৃণমূল? তা নিয়েই জোড় জল্পনা৷ এরই মাঝে এদিন বিধানসভায় দলীয় কাউন্সিলরদের নিয়ে বৈঠক করলেন ফিরহাদ হাকিম, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকরা৷

সোমবার বিধানসভায় এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ভাটপাড়া পুরসভার ২১ জন তৃণমূল কাউন্সিলর৷ তারা প্রত্যেকেই শাসক দলের সঙ্গে রয়েছেন বলে এদিন দাবি করেন মন্ত্রী ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷

আরও পড়ুন: কলকাতায় দাঁড়িয়ে ‘বন্দেমাতরম’ বলতে গিয়ে চোখে জল প্রতিরক্ষামন্ত্রীর

পুরসভার প্রধানই তৃণমূল ছেড়েছেন৷ এই অবস্থায় নতুন কাউকে চেয়ারম্যান হিসাবে বেছে নিতে হবে তৃণমূল কাউন্সিলরদের৷ এদিনের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান নির্বাচনের জন্য আবেদন করবেন শাসক দলের কাউন্সিলররা৷

সোমবারই বারাকপুরের এসডিও-র কাছে জমা পড়বে আবেদনপত্র৷ বর্তমানে, ভাটপাড়া পুরসভায় মোট আসন ৩৩৷ তারমধ্যে এক জনের মৃত্যু হয়েছে৷ ম্যাজিক ফিগার ১৭৷ যদি তৃণমূলের দাবিই বাস্তবায়িত হয় ভাটপাড়া পুরসভা দখলে রাখতে চলেছে জোড়া-ফুল শিবির৷

এর আগেও ভাটপাড়া পুরসভার জনা কুড়ি কাউন্সিলরকে নিয়ে বৈঠকে করেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷ বাস্তব বলছে, এতদিন ভাটপাড়ায় কেউ গেরুয়া পতাকা ধরার সাহস পাননি, সেখানে তৃণমূলের দলীয় দফতর বদলে যাচ্ছে গেরুয়া-সবুজ রঙে। দিল্লি থেকে অর্জুন সিং শহরে ফিরতেও দেখা যায় ভাটপাড়া পুরসভার ৪, ৩, ৬ ওয়ার্ডের কাউন্সিলরা অন্য সুরে কথা বলছেন৷ অর্জুনের নামে জয়ধ্বনি দিচ্ছেন৷ দেখে মনেই হতে পারে তারা দল বদলের অপেক্ষায়৷

আরও পড়ুন: বিজেপি-সিপিএম দুর্গে ফাটল ধরালেন তৃণমূলের মৌসম নুর

এদিন, বিধানসভায় তৃণমূল বিধায়ক পার্থ ভৌমিক বলেন, ‘‘অর্জুন সিংয়ের শক্তি দেখা যাবে চেয়ারম্যান নির্বাচন দিনেই৷’’ তাঁর পাশেই তখন দাঁড়িয়ে ভাটপাড়ার মহিলা তৃণমূল কাউন্সিলরদের অনেকে৷ ভাটপাড়ার উপ পুরপ্রধান সোমনাথ তালুকদার অবশ্য বলছেন, ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ কাউন্সিলর তৃণমূলেই আছেন। যাঁরা ইতস্তত করছেন, তাঁরাও থেকে যাবেন।’

দলবদল ঘিরে তরজা৷ কৌতুহল কার দখলে থাকবে ভাটপাড়া পুরসভা তা নিয়েও৷ এরসঙ্গেই অবশ্য যোগ হয়েছে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে অর্জুনের বিরুদ্ধে খাদ্যমন্ত্রীর তোপ দাগা৷ পালটা, দিয়ে ভাটপাড়ার দোর্দদণ্ডপ্রতাপ নেতার দাবি, অভিযোগ নির্দিষ্ট জায়গায় জানালে মন্ত্রীর বিরুদ্ধেও প্রমাণ তৈরি৷ শক্তি প্রদর্শনের খেলায় আপাতত ‘তু তু ম্যায় ম্যায়’য়ের পালা৷