স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: হাথরস কাণ্ডের প্রতিবাদে পথে নেমে বিজেপিকে অতিমারি বলেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার বিজেপিকে ‘সত্যিকারের করোনা’ বলে আক্রমণ করলেন রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

বিজয়া দশমীতে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশে খোলা চিঠি দিয়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, লক্ষ্য এবার একুশের বিধানসভা। সবাইকে একজোট হয়ে লড়াই করে জয় ছিনিয়ে আনতে হবে। সমবেত কণ্ঠে সংকল্প গ্রহণ করার কথা বলে তিনি আহ্বান জানান, করব মোরা লড়ব মোরা, সোনার বাংলা গড়ব মোরা। রাজ্য সভাপতি হিসেবে তাঁর আবেদন, বাংলার স্বার্থে, বাঙালির স্বার্থে আবারও একবার নিজেদের উজাড় করে দিয়ে বিজেপিকে প্রমাণ করে দিতে হবে যে সদিচ্ছা থাকলে যে কোন অসাধ্য সাধন অতি ক্ষুদ্র বিষয়। তিনি বলেছেন, সমবেত কণ্ঠে সঙ্কল্প গ্রহণ করে বলতে হবে যে “করব মোরা লড়ব মোরা সোনার বাংলা গড়ব মোরা।”

বিষয়টি নিয়ে জবাব দিতে গিয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেন, রাজনীতিতে সত্যিকারের ‘করোনা’ হল বিজেপি। এরা যত তাড়াতাড়ি শেষ হয়, তত বাংলার মঙ্গল। রাজ্যের মন্ত্রী বলেন, মা দুর্গা যেমন অসুরকে বধ করেছিলেন, তেমনই একদিন করোনাও বধ হবে। সেইসঙ্গে তিনি বলেন, দশমীতে দেবী দুর্গার কাছে তাঁর প্রার্থনা করোনা বধের মতোই বাংলা থেকে বিজেপিকে তাড়ান।

বিজেপির অস্ত্র পুজোর কড়া সমালোচনা করেছেন ফিরহাদ। তাঁর প্রশ্ন অস্ত্র পুজো কেন? পুজো করার পর কি তা দিয়ে কাউকে মারা হবে? মা দুর্গার কাছে থাকা অস্ত্র নিয়ে তাঁর প্রতিক্রিয়া, সেখানে যে অস্ত্র থাকে তা কৃত্রিম। বিজেপির বিরুদ্ধে অস্ত্র নিয়ে দাঙ্গা, হামলা ও মারামারির চেষ্টার অভিযোগ তিনি করেছেন। বিজেপির অস্ত্র পুজো নিয়ে প্রশাসন যে ব্যবস্থা নিয়েছে, তারও প্রশংসা করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, অস্ত্র পুজো করা নিয়ে দিলীপ ঘোষের যুক্তি, “শস্ত্র হচ্ছে শক্তির প্রতীক, দেশ-ধর্ম-সমাজ রক্ষার জন্য শস্ত্রের প্রয়োজন, শস্ত্রই আমাদের রক্ষা করে।”

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।