স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: “বাংলার কৃষ্টিতে বাংলার সংস্কৃতিতে কখনও বিভাজনের রাজনীতি চলে না। তাই বাংলায় জাতি, ধর্ম, ভাষা নির্বিশেষে সব মানুষ মমতার নেতৃত্বে প্রতিবাদে নেমে পড়েছেন অসাংবিধানিক ক্যাব এনআরসি-র প্রতিবাদ করার জন্য।” সোমবার হাওড়ায় জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের এনআরসি ও ক্যাব-এর প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দিয়ে এমনটাই বলেন, রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

তিনি বলেন, “আজকে হাওড়ায় এসে দেখতে পাচ্ছি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিএএ এবং এনআরসি-র বিরুদ্ধে বাংলার মানুষকে যে ডাক দিয়েছেন তাতে সাড়া দিয়েছেন তারা। মানুষ দৃঢ়প্রতিজ্ঞ যে তারা সিএএ এবং এনআরসি করতে দেবেন না। মানুষ মমতার ডাকে পথে নেমে প্রতিবাদ করতে চেয়ে সময়েরও আগে এখানে মিছিলে যোগ দিতে চলে এসেছেন। মমতার ডাকে গোটা বাংলার মানুষ এভাবেই বিভিন্ন জেলায় নেমে পড়েছেন।”

তিনি আরও বলেন, ”শুধু দলের কর্মীরা নয়, জনগণ আজকে পথে নেমেছেন। মমতার নেতৃত্বে বাংলার জনগণ এখানে এনআরসি ক্যাব করতে দেবে না। বাংলার কৃষ্টিতে বাংলার সংস্কৃতিতে কখনও বিভাজনের রাজনীতি চলে না। তাই বাংলায় জাতি, ধর্ম, ভাষা নির্বিশেষে সব মানুষ প্রতিবাদে নেমে পড়েছেন অসাংবিধানিক যে ক্যাব এনআরসি তার প্রতিবাদ করার জন্য।”

এদিন সিএএ, এনআরসি নিয়ে এবার প্রতিবাদ মিছিল হয় হাওড়ায়। দলের সদর সভাপতি মন্ত্রী অরূপ রায়ের নেতৃত্বে ওই মিছিল হয়। হাজির ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, লক্ষ্মীরতন শুক্লা, সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল নেতা সুপ্রীতি চট্টোপাধ্যায়, শ্যামল মিত্র, অয়ন বন্দ্যোপাধ্যায়, শেখ ইসলামউদ্দিন লালা প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। এদিন বেলা পৌনে ১২টা নাগাদ ময়দানের ফ্লাইওভারের নিচে থেকে মিছিল শুরু হয়। কয়েক হাজার মানুষ এতে অংশ নেন। ওই প্রতিবাদ মিছিল বিভিন্ন অঞ্চল পরিক্রমা করে কদমতলায় এসে শেষ হয়। সিএএ, এনআরসি বিরোধী শ্লোগান দেন মিছিলে অংশগ্রহণকারীরা।

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব