স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: আগুন লেগে আতঙ্ক ছড়াল হাওড়ার একটি বেসরকারি স্কুলে। সোমবার সকালে টিকিয়াপাড়ার ইস্ট ওয়েস্ট বাইপাস সংলগ্ন বেলিলিয়াস পার্কের কাছে ওই স্কুলের চারতলার সিঁড়ির পাশের একটি ঘর থেকে আগুনের ধোঁয়া বেরতে দেখা যায়। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে স্কুলে। এরপর নিরাপত্তার কারণে ওই স্কুলের সব পড়ুয়াদের বাইরে বের করে আনা হয়। খবর পেয়ে দমকলের ২টি ইঞ্জিন সেখানে পৌঁছায়। আগুন দ্রুত আয়ত্বে আনা হয়।

এই দুর্ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর নেই। স্কুলের চারতলার যে ঘর থেকে ধোঁয়া বেরতে দেখা যায় সেখানে বাতিল জিনিসপত্র মজুত ছিল বলে জানা গেছে। এদিন স্কুলের তরফ থেকেই দমকলে খবর দেওয়া হয়। তবে কি থেকে আগুন লাগল তা এখনও জানা যায়নি। সকাল ১০-৪০ মিনিট নাগাদ আগুন লাগে। প্রায় এক ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এদিকে এদিন ঘটনার জেরে স্কুলে ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। স্কুল কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে তাদের যথাযথ অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল। শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লাগার পর তারা নিজেরাই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। নিরাপত্তার স্বার্থে খবর দেওয়া হয় দমকলে।

এদিন ছুটিও দিয়ে দেওয়া হয় স্কুলে। ওই স্কুলের অধ্যক্ষা জানান, এটি খুবই ছোট একটি ঘটনা। স্কুলের সেফটির জন্য আমরা যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার তা নেওয়া হয়েছিল। আগে থেকেই অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা সবই ছিল। তা দিয়েই আমরা আগুন নিভিয়ে ফেলি। তবে পড়ুয়াদের নিরাপত্তার কথা ভেবে আমরা দমকলকে খবর দিই। সব পড়ুয়াকেই বাইরে বের করে আনা হয়। এবং এদিন ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়। তবে আগুনের ঘটনার সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনওরকম দুর্ব্যবহার করা হয়নি বলেও তিনি দাবি করেন।

গত ডিসেম্বর মাসেই হাওড়ার তিন জায়গায় অগ্নিকাণ্ডের তিনটি ঘটনা ঘটেছিল। তাও একই দিনে। ৮ ডিসেম্বর ২০১৯-এ প্রথম ঘটনাটি ঘটে হাওড়া ময়দানের একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখায়। দমকল সূত্রে জানা গিয়েছে, এসি থেকেই আগুন লেগেছিল। তবে আগুন ছড়িয়ে পড়ার আগেই দমকলের দু’টি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে গিয়ে তা নিয়ন্ত্রণে আনে। ওই দিন সকালেও আগুন লেগেছিল হাওড়া পুরসভার প্রধান কার্যালয়ের একটি বাতিল কাগজের গুদামে। বঙ্কিম সেতুর নীচে থাকা ওই গুদামে আগুন লাগায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়ায়। শাটারের নীচ থেকে আগুনের শিখা দেখতে পেয়ে পুরকর্মীরা দমকলে খবর দেন।

ঘটনাস্থলে পৌঁছয় তিনটি ইঞ্জিন। প্রায় তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ওই একই সময়ে দাশনগর থানার বালিটিকুরির রামকৃষ্ণপল্লি বারোয়ারিতলায় একটি বাড়ির নীচে থাকা কারখানার ফারনেসের জন্য মজুত করা তেলে আগুন লাগে। ঘনবসতিপূর্ণ এলাকার তস্য গলির ওই কারখানায় আগুন মুহূর্তের মধ্যে ভয়াবহ আকার নিয়েছিল। খবর পেয়ে দমকলের দু’টি ইঞ্জিন গিয়ে প্রায় তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নেভায়।