গুয়াহাটি: অসমের তিনসুকিয়ার বাঘজান অয়েল ফিল্ডে ভয়াবহ আগুন। গ্যাস লিক করেছে। অয়েল ইন্ডিয়া কর্তৃপক্ষ বেশ কিছু গ্রামবাসীকে সরায়। গ্লোবাল এক্সপার্টদের সাহায্য চাওয়া হয়েছিল। একটু দূরেই ন্যাশনাল পার্ক। ইতিমধ্যেই কিছু বন্য প্রাণী মৃত। মৃত্যু হয়েছে। মারা গেছে ডলফিন।

জানা গিয়েছে, সোমবার গ্যাস লিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে হাজির হয় সিঙ্গাপুরের বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা সবকিছু খতিয়ে দেখেন।মঙ্গলবার ফের পরীক্ষা চালানোর সময় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

অনেকদূর থেকে কালো ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে। ওই তেল খনির নিকট বিভিন্ন এলাকা খালি করা হয়েছে। তবে আগুন ছড়িয়েছে স্থানীয় বনভূমিতে। সংরক্ষিত বনাঞ্চলে লেগেছে দাবানল। পরিস্থিতি ভয়াবহ। এই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সময় লাগবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

জানা গিয়েছে ওই খনি থেকে গত ১৪ দিন ধরে গ্যাস লিক হয়ে বেরিয়ে আসছিল। মঙ্গলবার বিকেলে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পার্শ্ববর্তী এলাকায় ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা।

অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল ইতিমধ্যেই পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানের সঙ্গে কথা বলেছেন। এনডিআরএফ মোতায়েন করা হয়েছে। গ্যাস লিক হওয়ার সময় থেকেই এনডিআরএফ মোতায়েন করা হয়েছিল। অসমের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা পুরো ঘটনার উপর নজর রাখছেন।

সোমবারই ওই খনি পর্যবেক্ষণ করার জন্য লোক আনা হয়েছে সিঙ্গাপুর থেকে। গুয়াহাটি থেকে ৫০০ কিলোমিটার দূরে এই তেলের খনি। ইতিমধ্যেই গ্যাস লিক হওয়ায় অনেক ক্ষতি হয়েছে ওই অঞ্চলে। স্থানীয়দের দেওয়া ছবিতে দেখা যাচ্ছে ডলফিন মরে ভাসছে জলে। চা ব্যবসায়ীরাও আভিযোগ জানিয়েছেন।

ওই খনির দেড় কিলোমিটারের মধ্যে বসবাস করে অন্তত ৬০০০ মানুষ। তাঁদের সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে ৩০,০০০ টাকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে অয়েল ইন্ডিয়া লিমিটেড।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ