স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: যাত্রী বোঝাই চলন্ত বাসে আগুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল হলদিয়ার চৈতন্যপুরে। মঙ্গলবার দুপুর ১টা নাগাদ হলদিয়া থেকে ৪০ থেকে ৫০ জন যাত্রী নিয়ে একটি বাস মেচেদার অভিমুখে যাচ্ছিল। হঠাৎ হলদিয়ার সুতাহাটা থানার চৈতন্যপুরে যেতেই বাসটির মধ্যে থেকে ধোঁয়া বেরতে দেখতে পান যাত্রীরা।

যাত্রীদের চিৎকারে বাসটি দাঁড় করিয়ে দেন চালক। চিৎকার শুনে স্থানীয় মানুষজন ছুটে এসে যাত্রীদের বাস থেকে নামানোর পাশাপাশি জল দিয়ে আগুন নিভিয়ে ফেলে। তবে ঘটনায় কেউ হতাহত না হলেও যাত্রীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

আরও পড়ুন : গাড়ির নম্বর প্লেটে চৌকিদার লিখে বেকায়দায় বিজেপি বিধায়ক

প্রাথমিক ধারনা গরমের কারনেই ইঞ্জিনের তার পুড়ে আগুন আর ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে সুতাহাটা থানার পুলিশ। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। দিনদুপুরে এই ধরনের ঘটনায় যাত্রীদের পাশাপাশি এলাকার মানুষদের মধ্যেও আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

দমকল আসার আগেই স্থানীয়দের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা সম্ভব হয়। ঘটনায় হলদিয়া মেচেদা রাজ্য সড়ক কিছু সময়ের জন্য অচল হয়ে পড়ে৷ পুলিশের চেষ্টায় তা সচল হয়ে উঠে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।