কলকাতা: বিজেপিতে কেলেঙ্কারি। প্রভাবশালী এক বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে মারাত্মক অভিযোগ। ধর্ষণের অভিযোগ করলেন দলেরই এক নেত্রী। জানা যাচ্ছে, অভিযুক্ত ওই বিজেপি নেতা দক্ষিণ কলকাতার বিজেপি সভাপতি হিসাবে পরিচিত। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে লাগাতার ধর্ষণের অভিযোগ।

নিগৃহীত তরুণী বিজেপির টিচার্স সেলের সদস্য ছিলেন। এমনটাই সূত্রে খবর। খোদ কলকাতায় বিজেপি নেতার এহেন কুকর্মে মুখ পুড়েছে বিজেপি নেতৃত্বের। যদিও এই বিষয়ে স্পিকটি নিট বিজেপি নেতৃত্ব। তবে সূত্রের খবর, প্রমাণ হলে ওই বিজেপির নেতার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শুধু তাই নয়, আইন আইনের পথে চলবে বলেই জানিয়েছেন বিজেপি নেতারা।

অন্যদিকে, অভিযুক্ত ওই বিজেপি নেতার দাবি, এই ঘটনা ভিত্তিহীন। এর পিছনে গভীর রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র আছে। তাঁকে কালিমালিপ্ত করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ। অন্যদিকে, ওই মহিলার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন ওই বিজেপি নেতা। তাঁর দাবি, এখন দলের দক্ষিণ কলকাতার সভাপতি হয়েছেন, তাই ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

জানা গিয়েছে, বুধবার ওই নেতার বিরুদ্ধে হরিদেবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই মহিলা। অভিযোগকারিণী জানিয়েছেন, ২০১৫ থেকে ১৯ সাল পর্যন্ত বিজেপি দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। সেই সময় নানাভাবে শারীরিক এবং মানসিক ভাবে অত্যাচার করা হতো বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, যৌন নির্যাতনও করা হয়েছে বলে অভিযোগ। অভিযোগ, কখনও অন্যত্র ডেকে নিয়ে গিয়ে, কখনও তাঁরই বাড়িতে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস করেন তিনি। দিনের পর দিন এহেন কীর্তি চলত বলে অভিযোগ ওই মহিলার।

শুধু তাই নয়, সক্রিয় ভাবে দল করা সত্ত্বেও বিজেপি থেকে জোর করে পদত্যাগ করানো হয় বলেও অভিযোগ। এই বিষয়ে বারবার জানাতে গেলে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেওয়া হত বলে অভিযোগ ওই মহিলার। তবে শেষমেশ পুরো ঘটনা পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন বলে জানান ওই বিজেপি নেত্রী।

তবে বিজেপির এই প্রাক্তন নেত্রীর অভিযোগ, পুলিশে অভিযোগ করার পর থেকে বিভিন্ন হুমকি ফোন আসছে। এমনকি, অভিযোগ দ্রুত তুলে নেওয়ার জন্যে চাপ দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ নির্জাতিতার।

পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। সবদিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ