নয়াদিল্লি: এনএসএসও রিপোর্টের সমর্থনে সওয়াল করল অর্থমন্ত্রক ৷ জিডিপি হিসাব পত্তরের ক্ষেত্রে বেশি বেশি করে ধরার সম্ভাবনা সামান্যই বলে মনে করছে মন্ত্রক ৷ সরকারি তথ্যের উপর আস্থা হারাচ্ছে এমন আশংকা দানা বাধায় অর্থমন্ত্রকের পক্ষ থেকে এমন দাবি করা হল৷ কোম্পানি বিষয়ক মন্ত্রকের তথ্যে বেশ কিছু বাণিজ্যিক সংস্থার ঠিক মতো হদিশ নেই এবং ভারতের জিডিপি বৃদ্ধি গণনায় তার প্রভাব সামান্যই৷

অর্থমন্ত্রক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ভারতের পরিষেবা সংস্থাগুলির উপর এনএসএসও-র টেকনিক্যাল রিপোর্টের পর বলা হয়েছে ৩৬ শতাংশ এই এমসিএ ২১ ডেটাবেস-এর অংশ যা দিয়ে জিডিপি গণনা হয়েছে যাদের কোনও ভাবে চিহ্নিত করা যায়নি অথবা হদিশ নেই৷ এমসিএ ২১ হল কর্পোরেট ফাইলিং-এর এক ধরনের বিদ্যুতিক ভাণ্ডার এবং যা রক্ষণাবেক্ষণ করে কর্পোরেট বিষয়ক মন্ত্রক ৷

এই নিয়ে তিনদিনে দুবার সরকার বিবৃতি দিল এনএসএসও রিপোর্ট নিয়ে৷ বুধবার সংখ্যাতত্ব এবং কর্মসূচি রূপায়ণ মন্ত্রক এই নিয়ে প্রেস রিলিজ দিয়েছিল৷ অর্থমন্ত্রক শুক্রবার জানিয়েছেন, টেকনিক্যাল রিপোর্টে বলা হয়েছে ৩৫,৪৫৬টি সংস্থার ৩৮.৭শতাংশ নমুনা রয়েছে সমীক্ষার বাইরে রাখা হয়েছে৷ এই প্রসঙ্গে সংবাদ মাধ্যমের একাংশ ভুল ব্যাখ্যা করেছে নমুনা সমীক্ষার ব্যাপারে৷

মন্ত্রকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে বিবৃতির অপ ব্যাখ্যার বদলে সঠিক ব্যাখ্যা করতেই এটি দেওয়া হল৷ যে সব সংস্থা নমুনা সমীক্ষার বাইরে রয়েছে সেগুলির কার্যকারিতা এই পরিষেবা ক্ষেত্রের ভিতরে আনার মতো নয়৷ দেখা যাবে ওই সব সংস্থা অন্য কোনও রকম অর্থনৈতিক কাজে লিপ্ত তা পরিষেবার বদলে হয়তো উৎপাদন ক্ষেত্রে রয়েছে ৷