মেলবোর্ন: স্যান্ডপেপার গেট কান্ডে নির্বাসন পরবর্তী পর্যায়ে বাইশ গজে কতটা ভয়ঙ্কর হয়ে ফিরবেন স্টিভ স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নার। সেটাই এতদিন লাখ টাকার প্রশ্ন ছিল ক্রিকেট অনুরাগীদের কাছে। বিশেষজ্ঞদের কারও কারও মত ছিল, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে একবছরের সাসপেনশনই ফের ক্রিকেটে সাড়া জাগিয়ে ফিরতে সাহায্য করবে স্মিথ-ওয়ার্নারকে। বিশেষজ্ঞদের ভবিষ্যদ্বাণীকে সম্পূর্ণ মান্যতা দিয়েই চলতি আইপিএলে আরও একটি স্মরণীয় মরশুম শেষ করেছেন বিধ্বংসী ওয়ার্নার। আর সেই ‘ক্ষুধার্ত’ ওয়ার্নারকেই আসন্ন বিশ্বকাপে পেতে প্রত্যয়ী অজি দলনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

১২ ম্যাচে ৬৯.২০ ব্যাটিং গড়ে ২০১৯ আইপিএলে ওয়ার্নারের ব্যাট থেকে এসেছে ৬৯২ রান। শতরান ১টি ও অর্ধশতরান ৮টি। স্বাভাবিকভাবেই কোটিপতি লিগে ওয়ার্নারের স্বপ্নের ফর্ম বিশ্বকাপের আগে প্রত্যাশী করে তুলেছে দেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের। পিছিয়ে নেই অ্যারন ফিঞ্চও। প্রত্যয়ী ফিঞ্চ জানাচ্ছেন, বল বিকৃতি কান্ডে নির্বাসনের পর আসন্ন বিশ্বকাপে নিজেকে প্রমাণে অনেক বেশি মরিয়া থাকবেন ওয়ার্নার।

কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে চলতি আইপিএলের শেষ ম্যাচটি খেলে ইতিমধ্যেই দেশে ফিরেছেন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। শেষ ম্যাচেও তাঁর ব্যাট থেকে এসেছে ৫৬ বলে ঝকঝকে ৮১। লক্ষ্য এবার বিশ্বকাপ। আর আইপিএলে সতীর্থের বিধ্বংসী ফর্মে বিশ্বকাপেও আশার আলো দেখছেন দলনায়ক ফিঞ্চ। বিশ্বক্রিকেটের মেগা ইভেন্টেও ওয়ার্নারের বিধ্বংসী ফর্ম জারি থাকবে, প্রত্যাশী তিনি। যা খেতাব ধরে রাখার প্রশ্নে অস্ট্রেলিয়ার সহায়ক হয়ে উঠেবে।

মেলবোর্ন কমার্শিয়াল রেডিও’কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে বুধবার ফিঞ্চ জানান, ‘শুধুমাত্র ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে নয়, পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও ব্যাট হাতে ক্ষুধার্ত ওয়ার্নার কামব্যাক করছেন।’ এপ্রসঙ্গে ফিঞ্চ আরও যোগ করে বলেন, ‘১২ মাসের জন্য যখন কোনও ক্রিকেটারের থেকে ক্রিকেটকে কেড়ে নেওয়া হয় তখন ভিতর ভিতর তাঁর যে কী অসহনীয় অবস্থা হয়, তা খুব ভালোভাবেই আঁচ করা যায়।’

একইসঙ্গে এই নির্বাসন রিফ্রেশমেন্টের প্রশ্নে ওয়ার্নারের সহায়ক হয়েছে বলেও মনে করেন তিনি। ফিঞ্চের মতে, ওয়ার্নার কতটা ধ্বংসাত্মক হয়ে উঠতে পারে, সে সম্পর্কে সম্যক ধারণা রয়েছে আমাদের। আইপিএলে যোগদানের আগে দুবাইতে জাতীয় দলের একটি মিটিংয়ে যোগ দিয়েছিলেন স্মিথ-ওয়ার্নার। কিন্তু অনুশীলনে নামা হয়নি। আগামী শুক্রবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সার্কিট থেকে নিষেধাজ্ঞা ওঠার পর প্রথমবারের জন্য বিশ্বকাপ প্রস্তুতিতে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন এই দুই ক্রিকেটার।