নয়াদিল্লি: দেশের অর্থনীতি এগিয়ে নিয়ে যেতে বড়সড় প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভাষণে তিনি বলেছেন, ২০ লক্ষ কোটির প্যাকেজ দেওয়া হবে। কিন্তু তারপরই অর্থমন্ত্রীর ট্যুইট দেখে চমকে যান অনেকেই।

নির্মলা সীতারামণ ট্যুইটারে লেখেন, ”বিশেষ একটি ইকনমিক প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে, যা ভারতের জিডিপি-র ১০ শতাংশ (২০ লক্ষ)।”

অনেকেই চমকে যান সেই ট্যুইট পড়ে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে অমিল। তাও আবার একেবারে কোটি টাকার! পরে অবশ্য জানা যায়, বিষয়টা ভুল হয়েছিল। অর্থমন্ত্রী নিজেই ফের ট্যুইট করে ভুল শুধরে নেন। বলেন, ‘টাইপো হয়েছিল। সবাই পড়বেন ২০ লক্ষ কোটি।’

জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে দেশের জন্য বিশেষ আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেন তিনি।

দেশের সব মানুষই এই প্যাকেজের আওতায় থাকবেন। বুধবার থেকে অর্থমন্ত্রী ‘আত্মনির্ভর ভাফরত অভিযান’-এর এই প্যাকেজের ব্যাখ্যা করবেন বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী। মোট ২০ লক্ষ কোটির প্যাকেজ ঘোষণা করলেন তিনি, যা ভারতের জিডিপি-র প্রায় ১০ শতাংশ বলে জানিয়েছেন তিনি।

কুটির উদ্যোগ, গ্রামোদ্যোগ, কৃষি ক্ষেত্র, মধ্যবিত্ত সবার জন্যই কাজ করবে এই প্যাকেজ। মোদী বলেন, এতে ভারতের সব সেক্টরের গতি বাড়বে ও কাজের মানও উন্নত হবে।

ঠেলাওয়ালা কিংবা শ্রমিকের কষ্টের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এরা অনেক তপস্যা করেছে। অনেক কষ্ট করেছে। আজ ওদের আর্থিক উন্নতির জন্য আমাদের বড় কোনও পদক্ষেপ নিতে হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘স্থানীয় দোকান কিংবা ম্যানুফ্যাকচারারের গুরুত্ব আমরা সংকটের সময় বুঝেছি। সময় আমাদের শিখিয়েছে, লোকাল বা স্থানীয় এই সব ক্ষেত্রই আমাদের জীবনের মন্ত্র হয়ে উঠবে। গ্লোবাল ব্র্যান্ডগুলোও একসময় লোকাল ছিল। তারপর তাদের প্রচার হওয়াতেই তারা বিশ্বে জায়গা করে নিয়েছে।’ তাই প্রধানমন্ত্রীর আর্জি স্থানীয় ব্র্যান্ডের জিনিসপত্র কেনার পাশাপাশি, তার প্রচারও করতে হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I