নয়াদিল্লি: দোড়গোড়ায় বাজেট৷ এর ঠিক আগে ‘ইউনিয়ম মোবাইল বাজেট অ্যাপ’ উদ্বোধন করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন৷ স্বাধীনতার পর থেকে ভারতের ইতিহাসে এই প্রথম বাজেট কাগজে ছাপা হবে না৷

এর ফলে অবশ্য সহজেই বাজেটের নথি পৌঁছে যাবে সাধারণ মানুষের হাতে৷ এই বছর বাজাটের নথি পেপারলেস হলেও, প্রথা মেনে বাজেটের আগে পালিত হয়েছে হালুয়া উৎসব৷

উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন, অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর, অর্থ সচিব অজয় ভূষণ পাণ্ডে-সহ অর্থ মন্ত্রকের পদস্থ কর্তারা। প্রতি বছর নিজস্ব প্রেসে ছাপা হয় কেন্দ্রীয় বাজেট৷ বাজেট পেশের আগে প্রায় দু’সপ্তাহ ধরে প্রায় ১০০ জন কর্মী এই বাজেট ছাপার কাজ করেন৷

এমনকী নিরাপত্তার খাতিরে এই সময় তাঁরা বাড়িও ফেরেন না৷ হালুয়া উৎসবের পরেই শুরু হয়ে যায় বাজেট ছাপার কাজ৷ তবে করোনার কোপে এই বছর বাদ পড়ল চিরাচরিত এই প্রথা৷ ১ ফেব্রুয়ারি সংসদে কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করবেন নির্মলা সীতারমন৷ বাজেট পেশ হওয়ার পরই এই সংক্রান্ত যাবতীয় নথি জানা যাবে ‘ইউনিয়ম মোবাইল বাজেট অ্যাপ’-এর মাধ্যমে৷

এটি খুবই ইউজার ফ্রেন্ডলি৷ কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের তরফে বলা হয়েছে, এই অ্যাপের মধ্যে রয়েছে ডাউনলোড, মুদ্রণ, সার্চ, জুম ইন এবং আউট, বাইডাইরেকশন স্ক্রোলিং এবং এক্সটার্নাল লিঙ্ক৷ তদুপরী অ্যানড্রয়েড এবং আইওএস প্ল্যাটফর্মে হিন্দি এবং ইংরেজি, দুটি ভাষাতেই এটি পাওয়া যাবে৷ বাজেট সংক্রান্ত মোট ১৪টি নথি এই অ্যাপের মাধ্যমে উপলব্ধ হবে বলে জানা গিয়েছে৷

এতে বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি, অনুদানের চাহিদা, অর্থ বিল ইত্যাদি সম্পর্কিত তথ্যও দেওয়া হবে। এই অ্যাপ কোথা থেকে ডাউনলোড করা হবে তাও জানানো হয়েছে। এর জন্য অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে।

পাশাপাশি অ্যাপটি ইউনিয়ন বাজেটের ওয়েব পোর্টাল www.indiabudget.gov.in থেকেও ডাউনলোড করা যাবে। আসন্ন বাজেট অধিবেশন শুরু হবে ২৯ জানুয়ারি৷ চলবে ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত৷ দ্বিতীয় বাজেট অধিবেশন ৪ মার্চ থেকে শুরু হয়ে চলবে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।