স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: অবশেষে নিপা ভাইরাসের আতঙ্ক কাটিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় মালদহের আম লন্ডনে পৌঁছাল৷ মালদহ থেকে গাড়ি করে দমদম বিমানবন্দরে আম পাঠাতে সময় লেগে যায় সাত থেকে আট ঘন্টা৷ তাতে আমগুলি পচে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে৷ তাই হেলিকপটারে করে মালদহের আম লন্ডনে পৌঁছাল৷

মালদহ জেলা প্রশাশন এবং জেলা পরিষধ বিদেশের মাটিতে আরও তাড়াতাড়ি কীভাবে আম পাঠানো যায় সে বিষয়ে জরুরি বৈঠক করেছিলেন জেলা শাসকের দফতরে।

আরও পড়ুন: বিজেপি হারলে শেয়ারে মূল্যহ্রাস : নমুরা

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় মালদহয় প্রশাসনিক বৈঠকে জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্যকে এই বিষয়ে উদ্যোগ নিতে বলে ছিলেন। লন্ডনে আম পৌঁছানো ছিল জেলাশাসকের এক মাত্র লক্ষ্য৷ সেই লক্ষ্য পূরণে বিদেশের মাটিতে আম পৌঁছাতে হেলিকপটারের ব্যবহার করেছে।

জেলার ডিপিআরডিও সুকান্ত সাহা জানিয়েছেন, আম খুব দ্রুত পচে যায়৷ তাই মালদহ থেকে গাড়ি করে দমদম বিমানবন্দরে আম পাঠাতে সাত থেকে আট ঘন্টা সময় লেগে যায়৷ সেই সময় কমিয়ে আনতেই এই উদ্যোগ। হেলিকপটারে আম পাঠালে এক দিনের মধ্যেই আম লন্ডন সহ ইউরোপের বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন: বর্ধমানে ট্রেজারি কাণ্ডে মূল অভিযুক্ত গ্রেফতার

এর আগে জেলা উদ্যানপালন দফতরের আধিকারিক রাহুল চক্রবর্তী জানিয়েছিলেন, ১২০০ কেজি আম মালদহ থেকে সোজা লন্ডন যাবে। রবিবার সকালে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে এক রপ্তানিকারক সংস্থা এই আম লন্ডনে যাবে৷ মালদহ থেকে ২২ টাকা কেজি দরে এই আম কেনা হয়েছিল। তিন কেজি করে আম প্রতিটি প্যাকেটে থাকছে। লন্ডনে প্রতি প্যাকেটের দাম সাত থেকে আট পাউন্ড দামে বিক্রি হবে। এরপর ধাপে ধাপে ইউরোপের বিভিন্ন দেশেও এই আম যাবে।

ক্ষতির মুখে জেলার আম চাষিরা। ঠিক এই সময় জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য আম নিয়ে জরুরি বৈঠক করেছিলেন। তিনি বৈঠকে বলেছিলেন, মানুষ নির্ভয়ে আম খেতে পারেন। নিপা ভাইরাসে এখানে কেউ আক্রান্ত হয়নি।

আরও পড়ুন: আমি শাহেনশা নই, একজন সাধারণ মানুষ: মোদী

এরপর জেলা শাসক নিজে উদ্যোগ নিয়েছেন বিদেশের মাটিতে কীভাবে মালদহের আম পাঠানো যায়৷ মূলত প্রথম ধাপে যে ল্যাংড়া আম পাঠানো হচ্ছে সেই আম সংগ্রহ করা হয়েছে গাজোল থেকে। উদ্যানপাল দফতরের গবেষকরা জানিয়েছিলেন, গাজোলের মাটির জন্য আমের স্বাদ এবং রং অন্য জায়গার তুলনায় অনেক ভালো।