স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বাগুইআটিতে এক মহিলাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে চিত্র পরিচালক অর্ণব রায়কে গতকাল রাতে গ্রেফতার করে বাগুইআটি থানার পুলিশ।

শুরুটা ২০১৫ সাল। একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে অর্ণব এর সাথে পরিচয় হয় ওই মহিলার। মহিলার মেয়ে এবং অর্ণব এর ছেলে ওই স্কুলেই পড়াশোনা করে।

সেই সুত্রে দু জনের মধ্যে পরিচয় হয়। এর পরেই অর্ণব ওই মহিলার ফোন নাম্বার নিয়ে মাঝে মাঝে রাতে ফোন করতে থাকে। নিজেকে চিত্রপরিচালক পরিচয় দিয়ে ফোনে অশালীন মন্তব্য এবং সেক্সচুয়াল মেসেজ পাঠাতে থাকে।

ওই মহিলা বাধ্য হয়ে ফোন বদল করে ফেলে এবং তার মেয়েকে অন্য স্কুলে ভরতি করিয়ে দেয়। এখানেই শেষ নয়। অর্ণব মহিলার বাড়িতে গিয়ে দিনের পর দিন কু-প্রস্তাব দিতে থাকে।

গতকাল তা চরম পর্যায়ে পৌঁছায়। জোর করে ওই মহিলাকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। বাগুইআটি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ চিত্র পরিচালক অর্নব রায়কে গ্রেপ্তার করে। আজ তাকে আদালতে তোলা হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।