আমাদের ত্বক মাখনের মতো কোমল মোলায়েম রাখতে আমরা সবাই ভালোবাসি। কিন্তু অনেক সময়েই নানা সমস্যায় পড়ে আর সেই মোলায়েম ত্বক পাওয়া হয়ে ওঠে না। তাই সেই সমস্যায় পড়ে আমাদের অনেকেই পছন্দের জামাকাপড়ও পরতে পারি না। বগল বা শরীরের অন্যান্য জায়গার কালো ছোপ থাকলে তা দেখতেও বাজে লাগে। বগলের ত্বক খুব সেনসিটিভ হওয়ায় যে কোনো ধরণের ক্রিম ব্যবহারেই প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। ওবেসিটি, ডায়াবেটিস, পিসিওএস এগুলি সাধারণ কিছু কারণ যা বেশিরভাগ মেয়েদের মধ্যেই দেখা যায়।

তাছাড়া শেভিং, কিছু ডিওডোরেন্ট বা পারফিউমও সেই জায়গার ত্বকের জন্যে উপযুক্ত হয় না। এর থেকে মুক্তি পেতে আপনাকে বেশি ভাবতে হবে না। নিচে কিছু টিপস দেওয়া হলো। একবার চোখ বুলিয়ে নিন।

১. এলোভেরা জেল খুব ভালোভাবে ত্বক উজ্জ্বল করতে পারে। জেল কিছুটা নিয়ে বগলে লাগিয়ে শুকাতে দিন ১০-১৫ মিনিটের জন্যে। এরপর জল দিয়ে ধুয়ে দিন সেই জায়গাটি। সপ্তাহে ৪ দিন করুন এটি। ফল পাবেন তাড়াতাড়ি। যারা বুঝতে পারছেন না কোন জেলটি কিনবেন, তাদের জন্যে রইলো এই বিশেষ লিংক। আপনারা নিজেদের পছন্দ মতো জেল কিনে নিতে পারেন। দেখুন এই লিংক।

২. ডিওডোরেন্ট বা পারফিউম বদলান সবার আগে। বাজার থেকে কেনা সুগন্ধির শিশি ব্যবহার না করে বাড়িতেই বেকিং সোডা বা এপেল সিডার ভিনিগার লাগাতে পারেন সেই জায়গায়।

৩. শেভিং বন্ধ করুন। এর জায়গায় ওয়াক্সিং বা লেজার ট্রিটমেন্ট নিয়ে ভাবতে পারেন।

৪. একটি পাত্রে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস ও হলুদ মেশান। ৩০ মিনিট রেখে সেটি শুকিয়ে গেলেই ধুয়ে ফেলুন ঠান্ডা জল দিয়ে।

৫. ঢিলেঢালা পোশাক পরবেন। টাইট ফিটিং পোশাকে ঘাম আপনার বগলে বসে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

৬. নারকেল তেল খুব ভালো কাজ দেয়। কিছু ফোটা তেল নিয়ে বগলে মালিশ করুন। ১৫ মিনিট পর সাথে আস্তে ঈষদুষ্ণ গরম জলে ধুয়ে ফেলুন সেই জায়গা। দিতে পারেন মাইল্ড সাবান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।