নয়াদিল্লি: অন্তর্বর্তী বাজেটের প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছে বিজেপি৷ এই বাজেট জনমোহিনী, কৃষকদরদি এবং চাকরীজীবীদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে বলে প্রচার করা হচ্ছে গেরুয়া শিবিরের তরফে৷ পাশাপাশি বিরোধীরা এই বাজেটের বিরোধীতা করায় তাদের ব্যাঙ্গাত্মক সুরে বিদ্ধ করেছে৷ রসিকতার সঙ্গে বিজেপির প্রতিক্রিয়া, এই বাজেট বিরোধীদের উপর সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করেছে৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এই বাজেটকে ঐতিহাসিক বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই বাজেট দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করবে৷ সমাজের সব স্তরের মানুষ এর সুফল পাবে৷ সংসদের বাইরে সাংবাদিকদের দৃশ্যতই খুশি রাজনাথ সিং বলেন, ‘‘এই বাজেটের লক্ষ্য হল দেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করা৷ আমি এই বাজেটকে ঐতিহাসিক বলব৷’’

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মতো বাজেটের প্রশংসায় ভরিয়ে দেন অপর দুই কেন্দ্রীয়মন্ত্রী রামবিলাস পাসওয়ান ও আর কে সিং৷ এককদম এগিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এটা হল দ্বিতীয় সার্জিক্যাল স্ট্রাইক৷ প্রথম সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে জওয়ানরা সীমান্তে বন্দুক দিয়ে শক্রুর মোকাবিলা করেছিল৷ এবার ব্যালটে জবাব দেবে দেশবাসী৷ এই বাজেটে কৃষকদের স্বার্থ সুরক্ষিত হবে৷’’

আর কে সিং বিরোধীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘এই বাজেটকে স্বাগত জানানো উচিত৷ অবশ্য বিরোধীদের কাছে এই বাজেট মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ার মতো৷ আমার নিজেরই মনে হচ্ছে বিরোধীদের উপর সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছেন মোদী৷ এমন বাজেটে খুশি মানুষ৷’’

অপর কেন্দ্রীয়মন্ত্রী মহেশ শর্মাও বাজেটের প্রশংসা করে বলেন, ‘‘এই বাজেটে উপকৃত হবেন সাধারণ মানুষ ও চাকরীজীবী মানুষ৷ দরিদ্ররাও এই বাজেটের নানা ঘোষণার সুফল পাবে৷ বহু বছর পর দেশ এমন বাজেট পেল৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।