নয়াদিল্লি: পাঁচদিনের ক্রিকেটে ভারতীয় পেস বিভাগের তুরুপের তাস তিনি। কিন্তু আজ থেকে সাত বছর আগে কেরিয়ারে একটি ম্যাচের পর বদলে গিয়েছিল তাঁর ধ্যান-ধারণা। ২০১৩ অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে হোম সিরিজে মোহালি ওয়ান-ডে তাঁর কেরিয়ারে অন্যতম টার্নিং পয়েন্ট, জানালেন ইশান্ত শর্মা। ওই সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে জেমস ফকনার তাঁর এক ওভারে ৩০ রান নিয়ে ম্যাচের পট পরিবর্তন করে দিয়েছিলেন। আর ম্যাচের হারের পর তাঁর মনে হয়েছিল যেন দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন তিনি। সম্প্রতি এক ক্রিকেট অনুষ্ঠানের ভার্চুয়াল আড্ডায় জানালেন দেশের ল্যাঙ্কি পেসার।

ওই ম্যাচে জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার ১৮ বলে প্রয়োজন ছিল ৪৪ রান। অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি বল তুলে দিয়েছিলেন ইশান্ত শর্মার হাতে। দিল্লি পেসারের ওই ওভারে ৩০ রান নিয়ে ম্যাচ বের করে নিয়েছিলেন অজি অল-রাউন্ডার জেমস ফকনার। সিরিজ জিতে অস্ট্রেলিয়া সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিল। ওই ম্যাচ নিয়ে বলতে গিয়ে ইএসপিএনের ক্রিকেট অনুষ্ঠানে ইশান্ত বলেন, ‘২০১৩ আমার জীবনে টার্নিং পয়েন্টের মতো। মোহালি ওয়ান-ডে’তে ফকনার আমার এক ওভারে ৩০ রান নিয়ে ম্যাচ বের করে নিয়েছিল। এরপর আমার মনে হয়েছিল আমি যেন দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছি।’

ইশান্ত জানান, ‘আমি দু-তিন সপ্তাহ কারও সঙ্গে কথা বলিনি। প্রচুর কেঁদেছিলাম। আমি আসলে ভীষণ শক্ত মনের মানুষ। আমার মা বলে আমার চেয়ে শক্ত মনার মানুষ উনি কখনও দেখেননি। কিন্তু ওই ঘটনার পর বান্ধবীকে ফোন করে আমি বাচ্চাদের মতো কেঁদেছিলাম। ওই দিনগুলো আমার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো ছিল। খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলাম। আমি ঘুমোতে পারতাম না, কিচ্ছু ভালোলাগত না। টিভি খুললেই দেখতাম মানুষ আমায় নিয়ে সমালোচনা করছে। যা আমায় আরও হতাশ করে তুলেছিল।’ দিল্লি পেসার জানিয়েছেন ফকনারের ব্যাটে ওইদিন বেদম প্রহৃত হওয়ার পর জীবনে সব জিনিস গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করা আরম্ভ করেন তিনি।

ইশান্ত বলেন, ‘ওই ঘটনার আগে কেউ আমার পারফরম্যান্সের সমালোচনা করলে আমি বিশেষ গুরুত্ব দিতাম না। কিন্তু ২০১৩ ঘটনার পর থেকে আমার কাজের জন্য আমার দায়িত্ববোধ বেড়ে যায়।’ উল্লেখ্য, এরপর ইশান্তের এই অনুশোচনা বোধ বাইশ গজে তাঁর পারফরম্যান্সেও প্রভাব ফেলে। ওয়ান-ডে ক্রিকেটের কক্ষপথ থেকে ছিটকে গেলেও বর্তমানে টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের পেস বিভাগের অন্যতম লিডার তিনি। পাঁচ দিনের ক্রিকেটে ৩০০ উইকেট পূর্ণ করার থেকে মাত্র তিন ধাপ দূরে দাঁড়িয়ে দিল্লির এই ল্যাঙ্কি পেসার। সব ঠিক থাকলে বছর শেষে আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজেই দেশের ষষ্ঠ বোলার হিসেবে এই নজির গড়বেন ইশান্ত।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা