নয়দিল্লি: গত বছরে ভারত চিন সংঘর্ষের পরে চিনের বিরুদ্ধে ভারতের তরফে নেওয়া হয়েছিল ডিজিটাল পদক্ষেপ। এক ধাক্কাতে ব্যান করা হয়েছিল একাধিক চিনা অ্যাপ। এই কোপ এসে পরেছিল জনপ্রিয় পাবজি, টিকটকের মত অ্যাপের ক্ষেত্রেও। আর তারপরেই সামনে আনা হয়েছিল একাধিক দেশীয় বিকল্প অ্যাপ। আর এবারে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পরে সামনে এল জনপ্রিয় পাবজি।

মূলত অক্ষয় কুমারের এই গেমের সঙ্গে যুক্ত থাকার খবর সামনে আসার পরেই ভারতীয়দের মধ্যে আরও বেশি করে আকর্ষণ বাড়ে এই গেম নিয়ে। গত বছরেই এই গেম লঞ্চ করার কথা বললেও কোন কারণে তা পিছিয়ে দেওয়া হয়। তবে গেমের পোস্টার টিজার লঞ্চ হওয়ার ফলে তা যথেষ্ট আকর্ষণ তৈরি হয়েছিল ভারতীয়দের মধ্যে। আর এবার থেকে এই গেম প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে বলেও জানা গিয়েছে।

android ব্যবহারকারীরা প্লে স্টোর থেকে সহজেই এই গেম ব্যবহার করতে করতে পারবেন। এর আগেও ভারতীয়দের জন্য আনা হয়েছিল একাধিক গেম। তবে এই গেমের জন্য আকর্ষণ দেখে মনে করা হচ্ছে দ্রুত এই গেম দেশবাসীর কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। এও জানানো হয়েছিল এই গেম থেকে প্রাপ্ত অর্থের নির্দিষ্ট একটি পরিমাণ পাঠানো হবে ট্রাস্টে।

এই গেমে পটভূমি রাখা হয়েছে গালওয়ান সীমান্তের সংঘর্ষ। ব্যবহারকারীদের আকর্ষণ বৃদ্ধির জন্য এতে ব্যবহার করা হয়েছে উন্নত গ্রাফিক্স এবং তাঁর সঙ্গে রয়েছে একাধিক সুবিধা। গত বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে এই গেমের প্রায় কয়েক কোটি প্রি রেজিস্টার করা হয়েছিল। ইতিমধ্যে এই গেম ডাউনলোড করা হয়েছে একাধিক ব্যবহারকারীদের তরফে। এই গেম প্রস্তুতকারক সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে ব্যবহারকারীদের আকর্ষণ বৃদ্ধির জন্য এই গেমে বেশ কিছু মোড রাখা হয়েছে এছাড়া জানানো হয়েছে এই গেম অনেকে মিলেও খেলতে পারবেন। তবে মনে করা হচ্ছে দ্রুত এই গেম আনা হবে ios ব্যবহারকারীদের জন্য। কিন্তু তা কবে আনা হবে সেই বিষয়ে কোন স্পষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।