কলকাতা: পেস বোলিং ধীরে ধীরে ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম অঙ্গ হয়ে উঠছে৷ দীর্ঘদিন ভারতীয় বোলারদের কোচিং করানোর পর এমনটাই অনুভব করছেন সুলতান অফ সুইং ওয়াসিম আক্রাম৷ ২০১০ থেকে আইপিএল-এ কলকাতা নাইট রাইডার্সে কোচিং করাচ্ছেন তিনি৷ গতবার যদিও পারিবারিক কারণে টুর্নামেন্টে থাকতে পারেননি তিনি৷ অশোক দিন্দা, ইশান্ত শর্মার মতো ভারতীয় পেসারদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তিনি৷ এবার প্রাক্তন পাক পেসারের শিষ্য উমেশ যাদব৷

আক্রামের আশা উমেশ, মহম্মদ শামিদের থেকে অনুপ্রাণিত হবেন উঠতি বোলাররা৷ তিনি বলেন, ‘এদেশে ক্রিকেটের অবিশ্বাস্য জনপ্রিয়তা৷ একটা আইপিএল ম্যাচ দেখতে গ্যালারিতে ৭০ হাজার দর্শক উপস্থিত থাকেন৷ যা সত্যিই অভাবনীয়৷ আর আগামীর ক্রিকেটাররা উমেশ, শামি, বরুণ অ্যারনদের মধ্যেই নিজেদের নায়ককে খুঁজে নিতে পারবে৷ কিন্তু আগামীদের মনে রাখতে হবে এটা একটা স্পেল নির্ভর নয়৷ তাকে শিখতে হবে ১০ বছর কীভাবে পেস বোলিং চালিয়ে যাওয়া যায়৷ ৪৮ বর্ষীয় প্রাক্তন পাক অধিনায়ক আরও বলেন, ‘উমেশ, শামিদের এখন বোলিং সংক্রান্ত কিছু শেখানোর নেই৷ কোনও ব্যাটসম্যানের সবল-দূর্বল দিকটা কীভাবে বুঝে নিতে হবে অথবা বিশেষ ধরণের বল কখন করতে হবে, সেই রকম কিছু পরামর্শ দেওয়া ছাড়া ওরা পুরোপুরি তৈরি৷’

আইপিএল-এর হাত ধরে জাতীয় দলে প্রত্যাবর্তনের স্বপ্ন দেখছেন ভারতের এককালের অন্যতম সেরা পেসার জাহির খান৷ আক্রাম বলছেন ৩৬ বছর বয়সেও ফেরা যায়৷ ঘরোয়া ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে খেললে, ৩৬ বছর বয়সটা বিরাট বড় বাধা হয়ে দাঁড়ায় না৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।