শ্রীনগর: বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক নিয়ে জারি রাজনৈতিক তরজা৷ এবার এয়ারস্ট্রাইকের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুললেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা৷ তাঁর দাবি, দেশে মোদী হাওয়া ফিকে হয়ে গিয়েছে৷ তাই বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক করা হয়েছে৷

ফারুক আবদুল্লার দাবি, লোকসভা ভোটের মুখে দিকে তাকিয়ে এয়ারস্ট্রাইক করা হয়েছে৷ তাঁর মতে, ২০১৪ সালের মতো মোদী হাওয়া যদি থাকত তাহলে বালাকোটে যুদ্ধবিমান পাঠাতে হত না৷ ভাবখানা এমন যেন পাকিস্তানকে চাইলেই হাঁটু গেঁড়ে বসতে বাধ্য করতে পারে ভারত৷ এয়ারস্ট্রাইকে জঙ্গি মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে আরও একবার প্রশ্ন তোলেন৷ জানান, কেউ এই নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে প্রশ্ন তুললে তাঁকে দেশবিরোধী ও পাকিস্তানপ্রেমীর তকমা দেওয়া হচ্ছে৷

বালাকোটের এয়ারস্ট্রাইকের জেরে চাপা পড়ে গিয়েছে রাম মন্দির ইস্যু৷ সেই কথা মনে করিয়ে ফারুক বলেন, ‘‘আজ কেউ রামমন্দির নিয়ে কথা বলছে না৷ অথচ বালাকোট স্ট্রাইকের আগে সবাই মন্দির মন্দির করে চেচাচ্ছিল৷ আজ কেউ রাম নিয়ে কথা বলছে না৷’’

বালাকোট এয়ারস্ট্রাইক নিয়ে অতীতেও বহু প্রশ্ন তুলেছেন ফারুক৷ বলেছিলেন, বালাকোটে বায়ুসেনার প্রত্যাঘাত আসলে রাজনৈতিক গিমিক৷ লোকসভা ভোটের দিকে তাকিয়ে এই অভিযান করা হয়েছে৷ ফারুক আবদুল্লার ইঙ্গিত, একটি বিশেষ রাজনৈতিক দল যাতে ভোটে সুবিধা পায় সেই জন্য এই প্রত্যাঘাত করা হয়েছে৷

কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা বালাকোটের এয়ারস্ট্রাইক নিয়ে সরকারের কাছে প্রমাণ চেয়েছিলেন৷ বলেছিলেন, অমিত শাহের কাছে কী প্রমাণ আছে যে ৩০০ জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে৷ এই নিয়ে প্রশ্ন তুললে তোমায় দেশদ্রোহী বলা হচ্ছে৷ সময় এসেছে প্রশ্ন তোলার৷ শুধু ফারুক আবদুল্লা নয়, আরও এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি সরকারের কাছে জঙ্গি মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন৷