শ্রীনগর: আবারও ফারুক আবদুল্লার নিশানায় মোদী সরকার। জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, ‘মোদী সরকারকে বিশ্বাস করা যায় না।’ দেশবাসীকে সব ইস্যুতেই মোদী সরকার মিথ্যা বলে বলে অভিযোগ ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতার।

ফের কেন্দ্রকে নিশানা করলেন ফারুখ আবদুল্লা। শুক্রবার জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন ম্যখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা বলেন, ‘জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা লোপের আগে আমার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বৈঠক হয়েছিল। কিন্তু সেই বৈঠকে জম্মু কাশ্মীরে কেন্দ্র কী করতে চলেছে তা ঘুণাক্ষরেও টের পেতে দেননি নরেন্দ্র মোদী।’ নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে দিল্লিতে একটি অসত্য কথা বলার সরকার কেন্দ্রে চলছে বলে অভিযোগ ফারুক আবদুল্লার।

জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা লোপ পাওয়ার পরেই অশান্তি এড়াতে উপত্যকার একাধিক রাজনৈতিক নেতাকে গৃহবন্দি করে কেন্দ্রীয় সরকার। ভূস্বর্গে অশান্তি এড়াতে দেশের অন্য প্রান্ত থেকে সেনা-জওয়ানদের নিয়ে গিয়ে মোতায়েন করা হয়।

যে কোনও রকমের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার। এরই পাশাপাশি প্রকাশ্যে কোনও জমায়েতেও নিষেধাজ্ঞা জরি করে কেন্দ্র।

মোদী সরকারকে বিঁধে শুক্রবার ফারুক আবদুল্লা আরও বলেন, ‘দিল্লির সরকারকে আর কেউ বিশ্বাস করে না। প্রতিদিন কেন্দ্রের মোদী সরকার মিথ্যা কথা বলে।’

বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদ আরও জানান, উপত্যকায় ৩৭০ ধারা বাতিলের পর তাঁকে বাড়ির বাইরে বেরোতে বারণ করা হয়েছিল। তিনি বলেন, ‘রাতারাতি আমাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী সাজিয়ে দেওয়া হল। বাড়ির ফোনের লাইন কেটে দেওয়া হয়েছিল। মেয়ের সঙ্গে কথা বলতে চেয়েও পারিনি।’

উপত্যকা থেকে বিশেষ ধারা বাতিলের সময় প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লা ছাড়াও তাঁর পুত্র ওমর আবদুল্লাকেও গৃহবন্দি করে প্রশাসন। গৃহবন্দি করা হয় পিডিপি নেত্রী তথা জম্মু কাশ্মীরের আর এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতিকেও।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।