নয়াদিল্লি: রাজধানীর সিংঘু সীমানায় ‘কালী লোহরি’ পালন আন্দোলনরত কৃষকদের। গতরাতে নতুন তিনটি কৃষি আইনের প্রতিলিপি পুড়িয়ে বিক্ষোভ কৃষকদের। কৃষি আইনের প্রতিলিপি পোড়ানোর পাশাপাশি মোদী সরকারের বিরুদ্ধেও অনবরত চলতে থাকে স্লোগানিং। বুধবার রাতে দিল্লির সিংঘু ও গাজিপুর সীমানায প্রবল শীতেও কৃষকদের বিক্ষোভ ছিল স্বতঃস্ফুর্ত।

পাঞ্জাবের শীতকাললে রবি ফসল চাষের সূচনা উপলক্ষে ‘লোহরি ফসল উত্সব’ পালন করা হয়। কথিত আছে, মোঘল সম্রাট আকবরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের নেতৃত্বদানকারী কিংবদন্তি পাঞ্জাবী ‘নায়ক’ দুলা বাট্টির স্মরণে এই উত্সব পালনের মাধ্যমে কাঠ জ্বালিয়ে আগুন ধরানো হয়। বুধবার রাতে সিংঘু সীমানাতেও এই উত্সব পালনের মাধ্যমে কৃষি আইনের প্রতিবাদে সুর আরও চড়ালেন আন্দোলনকারী কৃষকরা।

ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের (ডাকোন্ডা) জেনারেল সেক্রেটারি জগমোহন সিং পটিয়াট্টা বলেন, “দুল্লা ভাট্টির গল্প আমাদের শিখিয়েছে যে লোহরিতে আমাদের অবশ্যই শপথ গ্রহণ করতে হবে। লোহরি শয়তানের সমাপ্তিও বোঝায়। এই কারণেই আমরা কৃষিক্ষেত্রের জন্য এই খামার আইনগুলিকে জ্বালিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। আমরা আশা করছি এবার সবার মঙ্গল হবে।”

নয়া কৃষি আইনের বিরোধিতায় কৃষক আন্দোলন দেড় মাসেরও বেশি সময ধরে চলছে। এই পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের সঙ্গে কৃষকদের বিবাদ এড়াতে সুপ্রিম কোর্ট ‌ আপাতত তিন কৃষি আইন কার্যকর করার ব্যাপারে স্থগিতাদেশ দিয়েছে।

এরই পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট কৃষি আইন ঘিরে এই জট কাটাতে চার সদস্যের একটি বিশেষ কমিটিও করে দিয়েছে। তবে এই কমিটির সদস্যদের নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। যে চার সদস্যদের নিয়ে কমিটি করা হয়েছে কৃষকদের অভাব-অভিযোগ শোনার জন্য তাদের চারজনই নতুন কৃষি আইনের সমর্থক বলে অভিযোগ উঠেছে। তাই নয় আন্দোলনকারী কৃষকেরা আদালতের এই অন্তর্বর্তী রায় কে ‘লুকোনো ফাদ’ বলে আখ্যা দিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।