বেঙ্গালুরু: অস্ট্রেলিয়ায় ‘বিরাট’ ইতিহাস গড়তে কোহলির দলের কান্ডারি ছিলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরে ব্যাটিং নির্ভরতা জুগিয়ে সৌরাষ্ট্রকে রঞ্জির ফাইনালে তুললেন পূজারা। মিস্টার ডিপেন্ডবলের অপরাজিত ১৩১ রান এবং শেলডন জ্যাকসনের ১০০ রানে ভর করে রঞ্জি ট্রফির ফাইনালে পৌঁছে গেল সৌরাষ্ট্র। কিন্তু ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলেও অনুরাগীদের তিরস্কারের মুখে পড়তে হল অস্ট্রেলিয়া সিরিজের নায়ককে।

আরও পড়ুন: নির্বাসিত পাক অধিনায়ক

ঘটনার সূত্রপাত সৌরাষ্ট্রের ব্যাটিংয়ের দ্বিতীয় ইনিংসে। ২৭৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে নেমে তখন সৌরাষ্ট্রের রান তিন উইকেটে ৬৮। বিনয় কুমারের একটি বল পূজারার ব্যাট ছুঁয়ে জমা পড়ে উইকেটরক্ষকের দস্তানায়। স্বভাবতই উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন বিনয় কুমার সহ কর্ণাটকের বাকি ক্রিকেটাররা। কিন্তু কর্ণাটক ক্রিকেটারদের সেই উচ্ছ্বাসে সায় দেননি আম্পায়ার। স্বভাবতই অন ফিল্ড আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কাতর্কিতে জড়িয়ে পড়েন কর্ণাটক ক্রিকেটাররা। অন্যদিকে আম্পায়ার আউটে সম্মতি না জানানোয় ক্রিজ ছাড়েননি পূজারাও।

আরও পড়ুন: প্রত্যাবর্তনেই দুরন্ত ক্যাচে ক্রিকেট দুনিয়ার ‘দিল’ জিতলেন হার্দিক

সবমিলিয়ে কোহলির দলের ব্যাটিং স্তম্ভের এহেন বিরূপ মনোভাব মেনে নিতে পারেননি কর্ণাটক সমর্থকেরা। এই ঘটনার জন্য সাজঘরে ফেরার পথে তির্যক মন্তব্য উড়ে আসে পূজারাকে উদ্দেশ্য করে। সৌরাষ্ট্রিয়ান ব্যাটসম্যানকে ‘চিটার’ বলে সম্বোধন করেন তারা। দলীয় ৬৮ রানের মাথায় পূজারার আউটের সিদ্ধান্ত কর্ণাটকের পক্ষে গেলে খেলার ফল অন্যরকম হতে পারত বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আরও পড়ুন: সনির মঞ্চে নায়ক জবি, ময়দানে শুরু অন্য মিথের গল্প

চতুর্থ ইনিংসে ২৭৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ব্যাট করতে ৫ উইকেটে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় সৌরাষ্ট্র। ২৩ রানে ৩ উইকেট খুঁইয়ে একসময় বিপাকে পড়ে যায় তারা। এরপর চতুর্থ উইকেটে ২১৪ রানের বিশাল পার্টনারশিপ জয়ের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায় সৌরাষ্ট্রকে। ১০০ রানে জ্যাকসন আউট হলেন ১৩১ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন পূজারা।